শেয়ার

ব্যাটারী ব্যাকাপের কথা বলতে গেলে ওয়ালটনের Primo HM সিরিজের কথা বলতেই হবে। দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারীর জন্য ইতি পূর্বে ওয়ালটনের HM Series বহুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে। সেই ধারাবাহিকতা বজায় রাখার জন্য ওয়ালটন আবারো নিয়ে আসলো Primo HM সিরিজের লেটেষ্ট ভার্সন Primo HM4+.

ডিভাইসটির বিস্তারিত আলোচনায় যাবার আগে জেনে নেই Primo HM4+ এর হাইলাইটস।

ডিভাইসের নাম Primo HM4+
ডিসপ্লে: 5.5″ HD IPS Display
2.5D Curved Glass
প্রোটেকশন নেই
র‌্যাম ২ জিবি
রম ১৬ জিবি ( ৬৪ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে)
সি.পি.ইউ ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর প্রোসেসর
জি.পি.ইউ মালি ৪০০
ক্যামেরা রিয়্যার ১৩ মেগাপিক্সেল
ফ্রন্ট ৮ মেগাপিক্সেল
ব্যাটারি ৩৮০০ মিলি এ্যম্পিয়ার
দাম ৯,৯৯০ টাকা
ডিসপ্লে

Primo HM4+ এর ডিসপ্লেতে ব্যবহার করা হয়েছে IPS Technology. ডিভাইসটিতে রয়েছে ৫.৫” ২.৫ডি এইচ ডি ডিসপ্লে। ডিসপ্লে’তে প্রোটেকশন না থাকায় স্ক্র্যাচ পরার সম্ভাবনা প্রবল। আর তাই ডিভাইসের প্রোটেকশনের জন্য স্ক্রিন প্রোটেক্টর ইউজ করা বাঞ্ছনীয়। এছাড়া ডিসপ্লেতে ৫ আঙ্গুল পর্যন্ত মাল্টি টাচ সাপোর্ট করে।

র‌্যাম এবং রম

Primo HM4+ এ রয়েছে ২ জিবি র‌্যাম (DDR3) এবং ১৬ জিবি ইন্টারনাল মেমোরী। ইন্টারনাল মেমেরাী এক্সপ্যান্ডেবল (৬৪ জিবি পর্যন্ত)।

সি.পি.ইউ / জি.পি.ইউ

Primo HM4+ এ ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর প্রোসেসর রয়েছে যা এই বাজেটের যে কোন স্মার্টফোনের জন্য পর্যাপ্ত। এছাড়া জি.পি.ইউ রয়েছে মালি ৪০০

আনবক্সিং

Primo HM4+ এর সাথে আপনারা পাচ্ছেন একটি Standard Ear phone, ইউ এস বি চার্জার উইথ ডাটা কেবল, সিম ইজেক্টর এবং সুদৃশ্য ব্যক কভার।

আউটলুক

সম্পূর্ণ মেটালিক ফ্রেম যুক্ত ডিভাইসটিতে রয়েছে ৫.৫” এইচ ডি ডিসপ্লে। ফ্রন্ট প্যানেলে সেলফি লাভারদের জন্য রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা। ক্যামেরায় ফ্ল্যাশ লাইটও ব্যবহার করা হয়েছে।

ডিভাইসের নিচের অংশে রয়েছ ৩টি ক্যাপাসিটিভ টাচ প্যানেল।

ভলিউম রকার্স এবং পাওয়ার বাটন রয়েছে ডিভাইসের উপরের দিকে বাম পাশে।

মাইক্রো ইউ এস বি পোর্ট, ৩.৫ মিলিমিটার অডিও পোর্ট এবং স্পিকার রয়েছে ডিভাইসের উপরের অংশে পাশাপাশি। এছাড়া সিমকার্ড ট্রে রয়েছে ডিভাইসের ডান পাশে।

রিয়্যার প্যানেলে উপরের দিকে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। ক্যামেরার ফ্ল্যাশ লাইট যথেষ্ঠ ভালো মানের।

সবচেয়ে ভালো লেগেছে যে বিষয়টা তা হলো এই অল্প বাজেটেও রয়েছে বায়োমেট্রিক ফিংগার প্রিন্ট সেন্সর।

ব্যাকপার্ট-টি সম্পূর্ণ নন রিমুভেবল। তবে সবচেয়ে আকর্ষণীয় যে বিষয়টি রয়েছে তা হলো ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ৩৮০০ মিলি এ্যম্পিয়ার লি-আয়ন ব্যাটারি।

ডিভাইসটির দৈর্ঘ্য ১৫৪.৭ মিলিমিটার, প্রস্থ্য ৭৭ মিলিমিটার এবং পূরুত্ব ৮.৪ মিলিমিটার। আর ডিভাইসটির ওজন মাত্র ১৬৮.৩ গ্রাম।

উপরের আলোচনা গুলো একটু মিলিয়ে নিন।

ইউজার ইন্টারফেস

Primo HM4+ এর ইউজার ইন্টারফেজ একে বারেই স্টক ঘরানার। আলাদা কোন বৈচিত্র নেই বললেই চলে। তবে ইউ.আই ট্রানজিশন ছিলো বেশ স্মুদ এবং ল্যাগ ফ্রি। আইকন গুলো একটু ভিন্ন তর। ওভার অল ইউ আই নিয়ে আমার কোন অভিযোগ নেই।

 

Primo HM4 V/S Primo HM4+

Primo HM4 এর সাথে Primo HM4+ এর পার্থক্য বলতে গেলে র‌্যাম এবং রিয়্যার প্যানেল ক্যামেরা। এছাড়া আর কোন পার্থক্য নেই।

অপারেটিং সিস্টেম

Primo HM4+ এ অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে পাবেন Android 7.0 Nougat.

ক্যামেরা

Primo HM4+ এ রিয়্যার প্যানেলে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। এছাড়া সেলফি তোলার জন্য রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা উইথ ফ্ল্যাশ লাইট। রিয়্যার এবং সেলফি ক্যামেরা কোয়ালটি চমৎকার। চলুন ডিভাইস দিলে তোলা কিছু ছবি দেখে নেই।

কানেক্টিভিটি এবং সেন্সর

Primo HM4+ এ যে সকল সেন্সর রয়েছে তা হলো: 

Accelerometer (3D), Gravity (3D), Gyroscope, Rotation Vector, Linear Acceleration, Light, Proximity, Magnetic Field (Compass), Orientation, Fingerprint Sensor, 
Primo HM4+ এ যে সকল কানেক্টিভিটি রয়েছে: WI-FI, Bluetooth V4, Micro USB 2.0, OTG OTA, Wireless Display, WLAN Hotspot ইত্যাদি।

স্পেশাল ফিচারস

** মাল্টি উইন্ডো: যারা এক সাথে একাধিক কাজ করতে পছন্দ করেন তাদের জন্য উপকারী ফিচার এটি। তবে ব্যাক গ্রাউন্ডে একাধিক এ্যপ চালু থাকলে মোবাইল স্লো হতে পারে।

** OTG: এত কম দামে ওয়ালটনের কোন স্মার্টফোনে ও.টি.জি ফিচার নেই। সেই হিসেবে Primo HM4+ ইউজার-রা বেশ লাকি বলা চলে।

** ব্যাটারী সেভার: যদিও Primo HM4+ এ ৩৮০০ মিলি এ্যম্পিয়ার ব্যাটারী ব্যাকাপ রয়েছে তার পরেও ব্যাটারীর স্থায়ীত্ব বৃদ্ধি করার জন্য ব্যাটারী সেভার অপশনটি বেশ উপকারী বলা চলে।

** ডুরা স্পিড: এই সুবিধার ফলে আপনি যে কোন এ্যপলিকেশন কে ব্যাক গ্রাউন্ড থেকে রিমুভ করতে পারবেন। ফলে ব্যাক গ্রাউন্ডে এ্যপলিকেশনের চাপ কম থাকবে। এতে করে র‌্যাম আর ব্যাটারী ২টাই সেইভ হবে।

** 3 in one Sim card Tray: এটা বলা চলে এই বাজেটে কেন, এর ডাবল বাজেটেও নেই। Primo HM4+ এর সিম কার্ড ট্রে-তে রয়েছে ৩টা স্লট। যার ফলে এক সাথে ২টা সিমের পাশাপাশি আলাদা ভাবে মাইক্রো এসডি কাডও ব্যবহার করতে পারবেন।

বেঞ্চমার্ক স্কোর

Primo HM4+ এর গিক বেঞ্চ টেষ্ট করেছি। চলুন স্কোর দেখে নেই।

 

দাম

Primo HM4+ এর বাজার মূল্য রাখা হয়েছে ৯,৯৯০ টাকা। আমার কাছে পার্সোনালী এই বাজেটে এর চেয়ে ভালো স্মার্টফোন চোখে পরেনা।

 

 

 

মন্তব্যসমূহ