শেয়ার

সেলফি কিং, নামটা শুনেই বোঝা যায় ক্যামেরা পারফরমেন্স বিশেষ করে সেলফি পারফরমেন্স সম্পর্কে। বর্তমানে বাজারে অনেক কোম্পানীর মোবাইল ফোন পাবেন যারা ট্যাগ লাইন ইউজ করে “সেলিফ এক্সপার্ট” বা এই টাইপের। কিন্তু যেখানে সেলফি কিং কথাটা ইউজ করা হয় তখন বুঝতে হবে বিশেষ কিছু আছে ডিভাইসটিতে।

কথা হচ্ছে Walton এর নতুন স্মার্টফোন Primo ZX3 নিয়ে। ZX সিরিজের আগের স্মার্টফোন গুলো যথেষ্ট্য জনপ্রিয় ছিলো। আর ZX সিরিজের ৩য় কিস্তী যে আগের সিরিজ গুলোকে ছাড়িয়ে যাবে এ বিষয়ে সন্দেহের অবকাশ থাকেনা।

শুধু নামেই সেলফি কিং নয়, ডিভাইসটির এমন অনেক ফিচার আছে যা সত্যিই আপনার মনোযোগ আকর্ষণ করতে সক্ষম। ডিভাইসটিতে প্রথম বারের মত ব্যবহার করা হয়েছে ডুয়াল ক্যামেরা। ২০১৭ সালের প্রধান আকষর্ণ হলো পোট্রেইট মোড এবং ডুয়াল ক্যামেরা স্মার্টফোন যার সবই রয়েছে Primo ZX 3 মোবাইলে।

বিলম্ব করবনা, Primo ZX3 মোবাইলের আরো যে সকল আকর্ষণীয় ফিচার রয়েছে সে গুলোর দিকে বিষদ আলোচনা করা যাক।

ডিভাইসটিতে রয়েছে ২.৫ গিগাহার্টজ অক্টাকোর প্রোসেসর, ৪ জিবি র‌্যাম, ৬৪ জিবি বিল্ট ইন রম, ৬” ফুল এইচ ডি ডিসপ্লে, ডুয়াল ক্যামেরা, ২০ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা, আল্ট্রা ফাষ্ট চার্জিং সহ আরো অনেক ফিচার।

প্রথমেই আলোচনা করবো ডিভাইসটির ডিসপ্লে সম্পর্কে:

এখন সবাই বড় ডিসপ্লের স্মার্টফোন বেশি পছন্দ করে। এর যথেষ্ট্য কারণও আছে। গেমিং এবং মুভি এক্সপিরিয়েন্স করার জন্য বড় ডিসপ্লের তুলনা হয়না। আর তাই আপনাদের কথা মাথায় রেখেই ওয়াল্টন নিয়ে এসেছে ৬” ফুল এইচ.ডি ডিসপ্লে। ডিসপ্লেতে রয়েছে ২.৫ ডি কার্ভড গ্লাস উইথ গড়িলা গ্লাস ৫ প্রোটেকশন। বলা বাহুল্য ডিভাইসটিতে ১০ আংগুল পর্যন্ত মাল্টি টাচ সাপোর্ট করে। ডিভাইসটির টাচ রেছপঞ্ছ দারুন  এবং ল্যাগিং ফ্রি।

ডিভাইসটির ইউ.আই এ ব্যবহার করা হয়েছে এ্যমিগো ৩.১ ইউজার ইন্টারফেস। আর অপারেটিং সিস্টেম রয়েছে এন্ড্রয়েড নোগাট ৭.০

ডিভাইসটির ফ্রন্ট প্যানেলের উপরের অংশে রয়েছে ২০ মেগাপিক্সেল ম্যাসিভ সেলফি ক্যামেরা। ক্যামেরার পাশে প্রক্সিমিটি সেন্সর সহ নিচের অংশে রয়েছে সুপার ফাষ্ট বায়োমেট্রিক ফিংগার প্রিন্ট সেন্সর।

সম্পূর্ণ মেটালের তৈরী ডিভাইসটির আউটলুক যে কোন ব্র্যান্ডের ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস-কে ডিজাইনের দিক দিয়ে টেক্কা দিতে সক্ষম।

ভলিউম রকার্স, পাওয়ার বাটন রয়েছে ডিভাইসের ডান পাশে উপরের অংশে। ডিভাইসের পেছনের অংশ টুকু সম্পূর্ণ নন রিমুভেবল।

৩.৫ মিলিমিটার অডিয় জ্যাকপোর্ট রয়েছে ডিভাইসটির উপরের অংশে আর চার্জিং পোর্ট রয়েছে ডিভাইসটির একদম নিচের দিকে। তবে এ্যন্টেনা ব্যান্ড বেশ ভিজিবল এবং ডিভাইসের টপ এবং বটম পার্টে টোটালি এনরাউন্ডেড হয়ে বেজেল বরাবর মিলে গেছে।

প্রথম বারের মত ওয়াল্টন ইউজ করেছে ডুয়াল ক্যামেরা। বলতে অপেক্ষা রাখেনা ওয়াল্টন তাদের নতুন পদক্ষেপে দারুণ সফল।

ডিভাইসটির পারফরমেন্স-তে ত্বরান্নিত করার জন্য ২.৫ গিগাহার্টজ অক্টাকোর প্রোসেসর এনাফ। এছাড়া সাথে রয়েছে ৪ জিবি DDR 4 র‌্যাম। গেমিং এর জন্য রয়েছে মালি টি৮৮০ জি.পি.ইউ।

ক্যামেরা ডিপার্টমেন্টে ওয়াল্টন যথেষ্ট উন্নত করেছে। Primo ZX3 এর ব্যাক প্যানেলে রয়েছে PDAF প্রযুক্তির ডুয়াল ক্যামেরা। যা অতি দ্রুত সাবজেক্ট-তে ফোকাস করতে সক্ষম।

ক্যামেরা ফাংশনে যে সকল কাজ করতে পারবেন আপনারা যা হলো : Portrait Mode, Professional Camera Mode, Face Beauty, Slow Motion, Time-lapse, High Dynamic Range Mode (HDR), Panorama, Smart Scene, Night Mode, GIF, Card Scanner.

কি, ফিচার গুলো দারুণ না। আপনারা আগেই জেনে গেছেন ডিভাইসটির ফ্রন্ট প্যানেলে রয়েছে ২০ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা উইথ সফ্ট ফ্লাশ লাইট। এবার চলুন ডিভাইসটির রিয়্যার ক্যামেরা সম্পর্কে আলোচনা করা যাক।

রিয়্যার ক্যামেরার উপরের ক্যামেরাটি মনোক্রোম বা সাদা কালো। উপরের ক্যামেরাটি ৫ মেগাপিক্সেল। আর নিচের ক্যামেরাটি ১৩ মেগাপিক্সেল। আর ক্যামেরা এ্যাপাচার F2.0 হওয়াতে লো লাইটেও সুপার্ব কোয়ালিটির ছবি তোলা যায়। চলুন এবার ক্যামেরা দিয়ে তোলা কিছু সুপার্ব কোয়ালিটির ছবি দেখা যাক।

ডিভাইসটিতে রয়েছে বিল্ট ইন ডুয়াল স্পিকার। এছাড়া ডিভাইসটির MAXX AUDIO System আপনাকে মিউজিক এক্সপিরিয়েন্স দেবে একদম মনের মত।

ডিভাইসটির পাওয়ার কনজাম্পশন নিয়ে ভাবছেন? টেনশনের কিছু নেই। ডিভাইসটিতে রয়েছে ৪৫৫০ মিলি এ্যম্পিয়ার নন রিমুভেবল ব্যাটারি। এক নজরে ডিভাইসটির ব্যাটারী সম্পর্কে জেনে নেই।

পারফরমেন্সের কথা চিন্তা করলে Primo ZX3- এর পারফরমেন্স নেক্সট টু বিষ্ট কোয়ালিটি। এর সুপারফাষ্ট অক্টাকোর প্রোসেসরের সাথে রয়েছে মালি টি৮৮০ জি.পি.ইউ। এন্টুটু বেঞ্চমার্ক পেয়েছি আমরা ৬৫৬৯৮, এছাড়া নেনামার্ক গ্রাফিক্স স্কোর এসেছে ৬০.৯ এফ.পি,এস। তবে এন্টুটু বেঞ্চমার্ক স্কোর নিয়ে আমি খুব একটা সন্তুষ্ট হতে পারিনি।  

বিশেষ ফিচার:

** ডিভাইসটিতে রয়েছে এজ্ বার। যা স্যামসাং এর গ্যালাক্সি সিরিজের মতই কাজ করবে।

** শটকার্ট কমান্ডের জন্য রয়েছে সাসপেন্ড বাটন।

** রয়েছে স্মার্ট জেশ্চার। 

** রয়েছে Blue Light Filter, যা রাতের বেলায় ক্ষতিকর লাইট থেকে আপনার চোখ-কে নিরাপদ রাখবে।

আপনাদের জন্য Primo ZX3’র মূল্য রাখা হয়েছে ৩৩,৯৯০ টাকা। তবে কম্পেটিটিভ মার্কেটে দামটা একটু বেশি লেগেছে আমার কাছে। 

তবে ওভারঅল চিন্তা করলে বিশেষ করে ক্যামেরা এবং অন্যান্য সব ইউনিক ফিচারের কথা চিন্তা করলে Primo ZX3 প্রকৃত পক্ষেই Walton’র একটি ফ্ল্যাগশিপ কিলার স্মার্টফোন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

মন্তব্যসমূহ