শেয়ার

মিড রেঞ্জ বাজেটে দারুন দুটি স্মার্টফোন লঞ্চ করলো ওয়ালটন। সাধ ও সাধ্যের মিলন বলতে যা বুঝায় তার সব-ই রয়েছে স্মার্টফোন ২টিতে। স্মার্টফোন ২টির নাম হলো Walton Primo NH3 & NH3 Lite.

ডিভাইস ২টিতে রয়েছে যথাক্রমে ২ জিবি এবং ১ জিবি র‌্যাম। ডিভাইস ২টিতে রয়েছে ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর প্রোসেসর। ডিসপ্লে ৫.৫” হলেও ক্যামেরা রয়েছে যথাক্রমে ১৩ মেগাপিক্সেল এবং ৮ মেগাপিক্সেল। ডিভাইস ২টির দাম নির্ধারণ করা হয়েছে যথাক্রমে ৭৭৯০ টাকা এবং ৬৪৯০ টাকা। চলুন, ডিভাইসের বিস্তারিত আলোচনায় যাবার আগে দেখে নেই ডিভাইস ২টির কনফিগারেশনের এক ঝলক।

                                     বিবরণ
  Primo NH3 Primo NH3 Lite
ডিসপ্লে ২.৫ ডি ৫.৫” এইচ.ডি ডিসপ্লে ২.৫ ডি ৫.৫” এইচ.ডি ডিসপ্লে
প্রোটেকশন নেই নেই
র‌্যাম ২ জিবি ১ জিবি
রম ১৬ জিবি (৬৪ জিবি পর্যন্ত এক্সপ্যান্ডেবল) ৮ জিবি (৩২ জিবি পর্যন্ত এক্সপ্যান্ডেবল)
ক্যামেরা রিয়্যার ১৩ মেগাপিক্সেল রিয়্যার ৮ মেগাপিক্সেল
ফ্রন্ট ৫ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ৫ মেগাপিক্সেল
প্রোসেসর ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর  ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর 
ব্যাটারি ২৮০০ মিলি এ্যম্পিয়ার লি আয়ন ২৮০০ মিলি এ্যম্পিয়ার লি আয়ন
মূল্য ৭,৭৯০ টাকা। ৬,৪৯০ টাকা।
Primo NH3 & NH3 Lite এর সাথে  আপনারা যে সকল জিনিস পাচ্ছেন তা হলো

** ইউজার ম্যানুয়্যাল ও ওয়্যারেন্টি কার্ড।

** ইউ এস বি চার্যার

** ইয়ার ফোন

অপারেটিং সিস্টেম

২টি ডিভাইসেই ব্যবহার করা হয়েছে এ্যন্ড্রয়েড নোগাট ৭.০ অপারেটিং সিস্টেম।

ডিজাইন এবং বিল্ট কোয়ালিটি

Primo NH3 এবং NH3 Lite এর গঠন হুবহ সেইম রাখা হলেও এর অভ্যান্তরিন কিছু তারতম্য আছে বৈকি।

Primo NH3 এবং NH3 Lite এর ফ্রন্ট প্যানেলে উপরের দিকে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা। সেলফি লাভারদের জন্য সুখবর হলো সেলফি ক্যামেরায় ফ্ল্যাশ লাইট ব্যবহার করা হয়েছে।

দুটো ডিভাইসেই ব্যবহার করা হয়েছে ২.৫ ডি কার্ভড গ্লাস। ডিভাইস গুলোতে রয়েছে ৫.৫” এইচ.ডি ডিসপ্লে। ডিভাইস গুলোর নিচের দিকে রয়েছে ৩টি টাচ নেভিগেশন প্যানেল।

ভলিউম রকার্স এবং পাওয়ার বাটন একসাথে পাশাপাশি রয়েছে ডিভাইসের ডান পাশে উপরের দিকে।

ইউ.এস.বি চার্জিং পোর্ট এবং অডিও জ্যাকপোর্ট বাটন রয়েছে একদম ডিভাইসের উপরের অংশে।

ডিভাইস ২টির ডিজাইন সেইম রাখা হয়েছে। প্লাষ্টিক মেইড ডিভাইস হলেও এর ইউনিক ডিজাইন চোখে পরার মত। Primo NH3 এর ব্যাক প্যানেলে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং NH3 Lite এর ব্যাক প্যানেলে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। দুটো ডিভাইসেই ক্যামেরায় ডুয়াল টোন ফ্ল্যাশ লাইট ব্যাবহার করা হয়েছে।

ডিভাইস দুটোতে ব্যাটারী ব্যাকাপ রয়েছে ২৮০০ মিলি এ্যম্পিয়ার লি-আয়ন ব্যাটারি। এছাড়া ২টি ৩জি সিমকার্ড স্লট সহ পাবেন ৬৪ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ স্লট। ডিভাইস গুলোর  দৈর্ঘ্য ১৫৪ মিলিমিটার, প্রস্থ্য ৭৬  মিলিমিটার এবং পুরুত্ব মাত্র ১০.২  মিলিমিটার। এছাড়া মোবাইলটির ওজন ব্যাটারি সহ ‌১১২.৫  গ্রাম।

চলুন, উপরের আলোচনা গুলো একটু মিলিয়ে নেই।ডিসপ্লে এবং টাচ কোয়ালিটি

Primo Nh3 & NH3 Lite এ ব্যবহার করা হয়েছে ৫.৫” এইচ.ডি ডিসপ্লে। এছাড়া ডিসপ্লেতে ব্যবহার করা হয়েছে ২.৫ ডি কার্ভড ডিসপ্লে। ৭২০ পিক্সেল ডিসপ্লে যুক্ত ডিভাইসটির স্ক্রিন রেজুল্যুশন হলো ১২৮০ X ৭২০ পিক্সেল। ডিভাইস গুলোতে  ১৬ মিলিয়ন কালার সাপোর্ট করে। দুটো ডিভাইসের-ই  টাচ রেছপঞ্ছ ভালো মানের। ডিভাইস দুটোর ডিসপ্লেতে ২ আঙ্গুল পর্যন্ত মাল্টিটাচ সাপোর্ট করে।

সি পি ইউ এবং জি পি ইউ

Walton Primo NH3 & NH3 Lite এ ব্যবহার করা হয়েছে ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াড কোর প্রোসেসর। এছাড়া Walton Primo NH3 & NH3 Lite এ মালি ৪০০ জি.পি.ইউ ব্যবহার করা হয়েছে।

র‌্যাম এবং রম

Walton Primo NH3-এ রয়েছে ২ জিবি র‌্যাম এবং ১৬ জিবি ইন্টারনাল  রম। আর NH3 Lite এ ১ জিবি র‌্যামের পাশাপাশি রয়েছে ৮ জিবি র‌ম। এছাড়া উভয় মোবাইলেই র‌্ম এক্সপ্যান্ডেবল করার সুযোগ রয়েছে ৬৪ জিবি পর্যন্ত।

ইউজার ইন্টারফেস

উভয় ডিভাইসেই পাবেন স্টক ইউজার ইন্টারফেস। তবে বিভিন্ন থার্ডপার্টি এ্যপস ইউজ করে ডিভাইসের ইউ.আই এ নতুনত্ব আনতে পারেন।

 

ক্যামেরা

Primo NH3 এবং NH3 Lite’র ফ্রন্ট প্যানেলে রয়েছে ফ্ল্যাশ লাইট সহ ৫ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা। এছাড়া রিয়্যার প্যানেলে রয়েছে ডুয়াল ফ্ল্যাশ লাইট সহ যথাক্রমে ১৩ মেগাপিক্সেল এবং ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। ক্যামেরা কোয়ালিটি যথেষ্ট মান সম্মত।

চলুন এখন মোবাইল দিয়ে তোলা কিছু স্থির চিত্র দেখে নেই।

NH3 রিয়্যার ক্যামেরা:

ফ্রন্ট ক্যামেরা:

NH3 Lite রিয়্যার কামেরা:

কানেক্টিভিটি ও সেন্সর

এই মোবাইলের কানেক্টিভিটির মধ্যে রয়েছে ওয়াই-ফাই, ব্লু-টুথ ভার্সন ৪, মাইক্রো ইউ এস বি ভার্সন ২, ওয়াই-ফাই হটস্পট ইত্যাদি।আর যে সকল সেন্সর ইউজ করা হয়েছে সে গুলো হলো এ্যকসেলোমিটার ৩ডি, লাইট সেন্সর, এবং প্রক্সিমিটি সেন্সর।

ব্যাটারি ব্যাকাপ

ডিভাইস দুইটাতে রয়েছে  ২৮০০ মিলি এ্যাম্পিয়ার লি-আয়ন রিমুভেবল ব্যাটারি। 

স্পেশাল ফিচারস

মিরাভিশন ডিসপ্লে টেকনোলজি:

ডাইনামিক রেঞ্জ ডিসপ্লে ব্যবহারের ক্ষেত্রে মিরাভিশনের জুরি মেলা ভার। বিশেষ করে মোবাইলে গান দেখা বা ভিডিও দেখার ক্ষেত্রে মিরাভিশন টেকনোলজির তুলনা হয়না।

মাল্টি উইন্ডো:

একটা সময়ে মাল্টি উইন্ডো শুধুমাত্র  ফ্ল্যাগশিপ মোবাইল গুলোতে পাওয়া যেত। কিন্তু ওয়ালটন এখন মিডরেঞ্জের বাজেটেই মাল্টি উইন্ডো সুবিধা দিচ্ছে। এই সুবিধা থাকার ফলে এক সাথে অনেক গুলো এ্যপস পাশাপাশি আলাদা উইন্ডো আকারে কাজ করা যায়। এছাড়া আরো রয়েছে শক্তিশালী ব্যাটারী সেভার। যার মাধ্যমে ব্যাক গ্রাউন্ডের রানিং এ্যপস গুলো কিল করে ব্যাটারী ব্যাকাপ বারানো যাবে। 

বেঞ্চমার্ক স্কোর

আমরা Primo NH3 এবং Primo NH3 Lite এর বেঞ্চমার্ক টেষ্ট করেছি। Primo NH3’র নেনামার্ক স্কোর এসেছে ৪৩.৫ এফ.পি.এস এবং Primo NH3 Lite এর নেনামার্ক স্কোর এসেছে ৪৩.১ এফ.পি.এস।
এছাড়া এ্যনটুটু বেঞ্চমামার্ক স্কোর এসেছে Primo NH3-তে ২৩, ৩২৭  এবং Primo NH3 Lite এ ২২,২১৬

দাম

কনফিগার অনুযায়ী ডিভাইস ২টার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। Primo NH3 এর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৭,৭৯০ টাকা এবং Primo NH3 Lite এর দাম ধার্য করা হয়েছে মাত্র ৬,৪৯০ টাকা।

সিদ্ধান্ত:

মোবাইল কেনার আগে দাম আর ফিচার তো অবশ্যই দেখবেন। তবে দাম যদি হাতের নাগালে চান এর কমফোর্টেবল প্রাইজের মধ্যে দাম চান Primo NH3 এবং Primo NH3 Lite ট্রাই করে দেখতে পারেন।

 

 

 

 

 

 

মন্তব্যসমূহ