শেয়ার

মিড রেঞ্জের মোবাইলে আরো একটি বিপ্লব ঘটাতে এলো ওয়ালটন। মিড রেঞ্জের মোবাইলে ফ্ল্যাগশিপ ফিলিংস নিয়ে এলো Walton Primo RM3s. দারুণ কনফিগারেশনের পাশাপাশি মেটালিক বিল্ড হওয়াতে ডিভাইসের আউটলুক বেশ প্রিমিয়াম। ডিভাইসটিতে রয়েছ ২.৫ডি ৫.২” এইচ.ডি ডিসপ্লে, ৩ জিবি র‌্যাম, ৩২ জিবি ইন্টারনাল মেমোরী সহ আরো অনেক কিছু। আর ব্যাটারি ব্যাকাপ! সেটাও তো বিশাল, ৪০০০ মিলি এ্যম্পিয়ার লি-আয়ন ব্যাটারি রয়েছে ডিভাইসটিতে। আর হ্যা, ভালো কথা, ডিভাইসটির দাম কিন্তু মাত্র ১৪,৪৯০ টাকা। চলুন একটু দেখে নেই Primo RM3s এর কনফিগারেশন।

                                Primo RM3s
ডিসপ্লে ৫.২” এইচ.ডি , ২.৫ ডি কার্ভড ডিসপ্লে
প্রোটেকশন গরিলা গ্লাস ৩
র‌্যাম ৩ জিবি
রম ৩২ জিবি (১২৮ জিবি পর্যন্ত এক্সপ্যান্ডেবল)
ক্যামেরা রিয়্যার ১৩ মেগাপিক্সেল
ফ্রন্ট ৮ মেগাপিক্সেল
প্রোসেসর ১.৩ গিগাহার্টজ অক্টাকোর প্রোসেসর
জি.পি.ইউ মালি টি৭২০
ব্যাটারি ৪০০০ মিলি এ্যম্পিয়ার
মূল্য ১৪,৪৯০ টাকা।
Primo RM3s এর সাথে যা পাচ্ছেন

** স্ক্রিন প্রোটেক্টর

** ইউজার ম্যানুয়্যাল/ওয়্যারেন্টি কার্ড।

** ইউ এস বি চার্যার/ডাটা কেবল

** ইয়ার ফোন

 

অপারেটিং সিস্টেম

Primo RM3s এ ব্যবহার করা হয়েছে এ্যন্ড্রয়েড নোগাট ৭.০ অপারেটিং সিস্টেম।

ডিজাইন এবং বিল্ট কোয়ালিটি

সম্পূর্ণ মেটালিক স্ট্রাকচারে গঠিত Primo RM3s এর কাঠামো। ধাতব আর ইউনিক ডিজাইনের কারণে Primo RM3s এর লুক এমনিতেই প্রিমিয়াম মনে হয়েছে আমার কাছে। ৫.২” ডিসপ্লের মোবাইলের ফ্রন্ট প্যানেলে উপরের দিকে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল সুপার্ব সেলফি ক্যামেরা। ক্যামেরার পাশে মাইক্রোফোন ছাড়াও রয়েছে প্রক্সিমিটি সেন্সর।ডিভাইসটির নিচের অংশে রয়েছে ফিজিক্যাল হোম বাটন সহ ২টি ক্যাপাসিটিভ টাচ বাটন। আর হ্যা, ভালো কথা, ফিজিক্যাল হোম বাটনের সাথে ব্যবহার করা হয়েছে বায়োমেট্রিক ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর।ডিভাইসটির ডান দিকে উপরের দিকে রয়েছে যথাক্রমে ভলিউম রকার্স এবং পাওয়ার বাটন। হাইব্রিড সিম কার্ডস্লট রয়েছে ডিভাইসটের বাম পাশে।

ডিভাইসটির ব্যাক প্যানেলটি সম্পূর্ণ মেটালিক ফ্রেমের তৈরী। এছাড়া বেশ কার্ভ রাখা হয়েছে ডিভাইসটির ব্যাক প্যানেল। ব্যাক প্যানেলের উপরে এবং নিচের অংশে রয়েছে এ্যন্টেনা ব্যান্ড যা কার্ভ হয়ে বেজেল বরাবর মিশেছে।৩.৫ মিলিমিটার অডিও পোর্ট রয়েছে ডিভাইসের একদম উপরের অংশে।

এছাড়া মাইক্রো ইউ.এস.বি চার্জিং পোর্ট রয়েছে ডিভাইসের নিচের দিকে।

Primo RM3s এর ব্যাক প্যানেলে উপরের অংশে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা উইথ ডুয়াল টোন এল.ই.ডি ফ্ল্যাশ লাইট।

মোবাইলটির দৈর্ঘ্য ১৪৮.৫ মিলিমিটার, প্রস্থ্য ৭২ মিলিমিটার এবং পুরুত্ব মাত্র  ৯.১ মিলিমিটার। এছাড়া মোবাইলটির ওজন ব্যাটারি সহ মাত্র ১৬২ গ্রাম। কাজেই বুঝতেই পারছেন ডিভাইসটি কতটা স্লিম।

 

ডিসপ্লে এবং টাচ কোয়ালিটি

Walton Primo RM3s এর ডিসপ্লে-তে ব্যবহার করা হয়েছে ২.৫ ডি কার্ভড ৫.২” এইচ.ডি ডিসপ্লে যার রেজুল্যুশন হলো ১২৮০ X ৭২০ পিক্সেল।  ডিসপ্লের প্রোটেকশনের জন্য ব্যবহার করা হয়েছে গরিলা গ্লাস ৩।ডিসপ্লের ভিউয়িং এঙ্গেল চমৎকার এবং ভাইব্র্যান্ট। ডে-লাইট ভিজিবিলিটি খুব-ই ভালো।মুভি দেখা এবং হাই রেজুল্যুশন গান দেখার জন্য এই ডিসপ্লে আপনাকে দারুন এক্সপিরিয়েন্স দেবে। ডিভাইসটির  ডিসপ্লেতে ৫ আঙ্গুল পর্যন্ত মাল্টিটাচ সাপোর্ট করে।

সি পি ইউ এবং জি পি ইউ

Walton Primo RM3s এ ব্যবহার করা হয়েছে ১.৩ গিগাহার্টজ ৬৪ বিট অক্টাকোর প্রোসেসর।

এছাড়া জি.পি.ইউ হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে মালি টি৭২০ জি.পি.ইউ

র‌্যাম এবং রম

Primo RM3s এ রয়েছে ৩ জিবি র‌্যাম এবং ৩২ জিবি ইন্টারনাল মেমোরী। শুধু তাই নয়, ১২৮ জিবি পর্যন্ত এক্সটার্নাল মেমোরীও বাড়াতে পারবেন।

ইউজার ইন্টারফেস

প্রতিটা মোবাইলের নিজস্বতাই তার আসল পরিচয়। আর একটা মোবাইলের নিজস্বতার প্রকাশ পায় তার ইউজার ইন্টারফেস দেখেই। Walton Primo RM3s এর ইউজার ইন্টারফেসে আপনারা ষ্টক নোগাটের স্বাদ পাবেন। ডায়াল প্যাড, নোটিফিকেশন বার থেকে শুরু করে সকল স্তরেই পাবেন ষ্টক নোগাটের আমেজ। থিম সেকশন থেকে বিভিন্ন প্রকার ষ্টক থিম ব্যবহার করে মোবাইলের লুকস-কে পরিবর্তন করতে পারবেন। এছাড়া বিভিন্ন থার্ডপার্টি লঞ্চার  ইউজ করার স্বাধীনতা তো রয়েছেই।

ক্যামেরা

Primo RM3s এ রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল অটোফোকাস বি.এস.আই সেন্সর যুক্ত সুপার্ব কোয়ালিটি ক্যামেরা। ক্যামেরা কোয়ালিটি ফ্ল্যাগশিপ টাইপ না হলেও মান সম্মত। আর যারা সেলফি তুলতে ভালোবাসেন তাদের জন্য Primo RM3s এ ব্যবহার করা হয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল সুপার্ব সেলফি ক্যামেরা। চলুন মোবাইল দিয়ে তোলা কিছু স্থির চিত্র দেখে নেই।

কানেক্টিভিটি ও সেন্সর

Primo Rm3s’র কানেক্টিভিটির মধ্যে রয়েছে ওয়াই-ফাই, ব্লু-টুথ ভার্সন ৪, মাইক্রো ইউ এস বি ভার্সন ২, ওয়াই-ফাই হটস্পট, ও.টি.জি ইত্যাদি।

আর যে সকল সেন্সর ইউজ করা হয়েছে সে গুলো হলো এ্যকসেলোমিটার ৩ডি, লাইট সেন্সর, প্রক্সিমিটি সেন্সর, ওরিয়েন্টেশন, রোটেশন ভেক্টর এবং ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর।

গেমিং পারফরমেন্স

যে কোন প্রকার এইচ.ডি গেমস খেলার স্বাধীনতা দেবে আপনাকে Primo RM3s. বিশেষ করে এই মোবাইলের শক্তিশালী র‌্যাম আর জি.পি.ইউ আপনার গেমিং পারফরমেন্স কে আরো গতি দেবে। এসফাল্ট, নোভা, মডার্ন কম্ব্যাট থেকে শুরু করে সকল প্রকার গেমস খেলতে পারবেন কোন প্রকার ল্যাগিং ছাড়াই।

ব্যাটারি ব্যাকাপ

এই মোবাইলে ব্যবহার করা হয়েছে ৪০০০ মিলি এ্যাম্পিয়ার লি-আয়ন নন রিমুভেবল ব্যাটারি। নরমাল ব্রাউজিং, গেমিং, কথা বলা সহ সকল কিছু করার জন্য এই ব্যাটারি ব্যাকাপ দিয়ে ১০ ঘন্টা ইজিলি ব্যাটারি ব্যাকাপ পাবেন।

স্পেশাল ফিচারস

ও টি এ:

আপনার স্মার্টফোন অনলাইন আপডেট এর  জন্য ও টি এ একটি অনন্য সুবিধা যা বিশ্বের সকল স্মার্টফোনেই রয়েছে। আপনার ডিভাইসের সফ্টওয়্যার আপডেট মোবাইলের ডাটা বা ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমেই করতে পারবেন।

 আর ও.টি.জি কেবল এর মাধ্যমে আপনার স্মার্টফোনের মাধ্যমে মোবাইলেই মাউস, কি-বোর্ড, পেন ড্রাইভ ইউজ করতে পারবেন।

ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর:

Primo RM3s এ রয়েছে সুপার ফাষ্ট ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর। আর বায়োমেট্রিক ফিংগার প্রিন্ট সেন্সর থাকার ফলে আপনার ডিভাইসের নিরাপত্তা একদম নিশ্চিত।

বেঞ্চমার্ক স্কোর

মোবাইল কিনবেন, অথচ মোবাইলের বেঞ্চমার্ক টেষ্ট করবেন না, তা কি হয়? আমরা আপনাদের সুবিধার  জন্যে মোবাইলে এ্যনটুটু বেঞ্চমার্ক, নেনামার্ক এবং গিকবেঞ্চ টেষ্ট করেছি। চলুন এক নজরে দেখে নেই মোবাইলের বেঞ্চমার্ক স্কোর গুলো কেমন। Primo RM3s এর এ্যনটুটু বেঞ্চমার্ক স্কোর এসেছে ৩৮,২৩৯ এবং নেনামার্ক স্কোর এসেছে ৫৫.১ এফ.পি.এস। এছাড়া আমরা গিকবেঞ্চ টেষ্টও করেছি। চলুন এক নজরে দেখে নেই মোবাইলের গিকবেঞ্চ স্কোর।

দাম

এই মোবাইলের দাম ধার্য করা হয়েছে মাত্র ১৪,৪৯০ টাকা।

 

 

 

 

 

 

 

 

মন্তব্যসমূহ