শেয়ার

ওয়াল্টন মানেই নিত্য নতুন স্মার্টফোনের সমাহার। প্রায় এক মাস বিরতীর পর আবারো তারা নিয়ে আসলো বেশ কিছু নতুন স্মার্টফোন। আজকে আমরা যে স্মার্টফোন নিয়ে কথা বলবো তার নাম হচ্ছে Walton Primo G7+

ডিভাইসটির দামের প্রসঙ্গে না এসে চলুন জেনে নেই ডিভাইসটির বিশেষ কিছু ফিচার সম্পর্কে। এ্যন্ড্রয়েড নোগাট ৭.০ চালিত ডিভাইসটিতে রয়েছে ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর প্রোসেসর। সাথে রয়েছে ২ জিবি র‌্যাম, ১৬ জিবি বিল্ট ইন মেমোরি। আরো রয়েছে ৫.৫” এইচ.ডি ডিসপ্লে উইথ ২.৫ ডি কার্ভড গ্লাস। ডিভাইসটিতে ১৩ মেগাপিক্সেল রিয়্যার ক্যামেরার পাশাপাশি ফ্রন্টে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ফ্ল্যাশ সহ সেলফি ক্যামেরা। ভাবছেন দাম হয়তো অনেক বেশি। না, মোটেই না। Walton Primo G7+ এর বাজারমূল্য ধরা হয়েছে মাত্র ৮,৫৯০ টাকা।

মোবাইলটির সাথে আপনারা যে সকল জিনিস পাচ্ছেন তা হলো

** ইউজার ম্যানুয়্যাল ও ওয়্যারেন্টি কার্ড।

** ইউ এস বি চার্যার

** ইয়ার ফোন

এক নজরে Primo G7+

                                    বিবরণ
ডিসপ্লে ২.৫ ডি ৫.৫” এইচ.ডি আই.পি.এস ডিসপ্লে
প্রোটেকশন গরিলা গ্লাস ২
র‌্যাম ২ জিবি
রম ১৬ জিবি (৬৪ জিবি পর্যন্ত বৃদ্ধি করা যাবে।
ক্যামেরা রিয়্যার ১৩ মেগাপিক্সেল
ফ্রন্ট ৮ মেগাপিক্সেল
প্রোসেসর ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর প্রোসেসর
ব্যাটারি ২৮০০ মিলি এ্যম্পিয়ার
মূল্য ৮,৫৯০ টাকা।
অপারেটিং সিস্টেম

ডিভাইসটিতে রয়েছে এন্ড্রয়েড নোগাট ৭.০

ডিজা্ইন এবং বিল্ট কোয়ালিটি

ডিজাইনের দিক দিয়ে Walton Primo G7+ অনেকটা মেটালিক লুকসের মত। মোবাইলটি হাতে নিয়ে এক্সপিরিয়েন্স না করলে আপনি বুঝতেই পারবেন না এটা কি মেটালিক বডি না প্লাষ্টিক মেইড। সিলভার রঙের প্লাষ্টিক বডির এই মোবাইলের ডিসপ্লে-তে ব্যবহার করা হয়ে আই পি এস প্রযুক্তি। মোবাইলটি-তে রয়েছে ৫.৫” এইচ ডি ডিসপ্লে। মোবাইলটির ডিসপ্লের উপরের অংশে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা। আর তার ঠিক পাশেই রয়েছে প্রক্সিমিটি সেন্সর।মোবাইলের একদম নিচের দিকে রয়েছে ৩টি ক্যাপাসিটিভ টাচ প্যানেল।মোবাইলের ডান পাশে উপরের দিকে রয়েছে ভলিউম রকারস বাটন। আর তার ঠিক নিচেই রয়েছে পাওয়ার বাটন।মাইক্রো ইউ এস বি পোর্ট এবং ৩.৫ মিলিমিটার অডিও জ্যাক পোর্ট রয়েছে ডিভাইসটির উপরের অংশে।মোবাইলটির ব্যাক কভার যথেষ্ট্য কার্ভ। ফলে ডিভাইসটির হ্যন্ডগ্রিপ এক কথায় সুপার্ব। ডিভাইসটির রিয়্যার প্যানেলে রয়েছে ডুয়াল এল.ই.ডি ফ্ল্যাশ সহ ১৩ মেগাপিক্সেল অটো ফোকাস ক্যামেরা।মোবাইলের ব্যাক কভার খুললে পাবেন ২৮০০ মিলি এ্যম্পিয়ার রিমুভেবল ব্যাটারি। ব্যাটারির উপরের দিকে রয়েছে ২টি ডুয়াল ৩জি সিম স্লট। এছাড়া ৬৪ জিবি মাইক্রো ইউ এস বি স্লট তো রয়েছেই।মোবাইলটির দৈর্ঘ্য ১৫২ মিলিমিটার, প্রস্থ্য ৮০ মিলিমিটার এবং পুরুত্ব মাত্র  ১০.৫ মিলিমিটার। এছাড়া মোবাইলটির ওজন ব্যাটারি সহ ১৯০  গ্রাম।চলুন উপরের আলোচনা গুলো মিলিয়ে নেই।

ডিসপ্লে এবং টাচ কোয়ালিটি

Walton Primo G7+ এর ডিসপ্লে-তে ব্যবহার করা হয়েছে ৫.৫” এইচ.ডি আই পি এস ডিসপ্লে। ডিসপ্লে’র বিশেষত্ব হলো ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ২.৫ ডি কার্ভড ডিসপ্লে। ডিসপ্লে রেজুল্যুশন হলো ১২৮০ X ৭২০ পিক্সেল। আর মোবাইলের ডিসপ্লেতে ১৬.৭ মিলিয়ন কালার সাপোর্ট করে। ডিসপ্লের প্রোটেকশনের জন্য রয়েছে গরিলা গ্লাস ২। ডিভাইসটিতে আপনারা ফুল এইচ ডি ভিডিও (১০৮০x১৯২০ পিক্সেল) ভিডিও দেখতে পারবেন কোন প্রকার ল্যাগিং ছাড়া। এই মোবাইলের টাচ এক কথায় দারুন এবং রেসপন্সিভ। বিন্দু মাত্র ল্যাগিং পাইনি। আর এই মোবাইলের ডিসপ্লেতে ২ আঙ্গুল পর্যন্ত মাল্টিটাচ সাপোর্ট করে।

সি পি ইউ এবং জি পি ইউ

Walton Primo G7+ এ ব্যবহার করা হয়েছে ৬৪ বিট ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াড কোর প্রোসেসর। এছাড়া Primo G7+ এ জি.পি.ইউ রয়েছে মালি ৪০০, যা ওয়াল্টন এর লো-রেঞ্জ বাজেটে বেশি প্রচলিত।

র‌্যাম এবং রম

Primo G7+-এ রয়েছে ২ জিবি র‌্যাম এবং ১৬ জিবি ইন্টারনাল মেমোরী। ২জিবি র‌্যামের মধ্যে আপনারা ইউজার এ্যভেইলেবল র‌্যাম পাবেন ১.৯ জিবি পর্যন্ত। আর ১৬ জিবি ইন্টারনাল মেমোরীর মধ্যে আপনারা ইউজার এ্যভেইলেবল ১১ জিবি ইউনিফাইড স্টোরেজ হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন। আর বাকি যায়গা টুকু মোবাইলের ও.এস এবং বিল্ট ইন এ্পস ইনষ্টলের জন্য ব্যবহৃত হয়েছে। এছাড়া  ৬৪ জিবি পর্যন্ত এক্সটার্নাল মেমোরী ব্যবহার করার সুবিধা তো রয়েছেই।

ইউজার ইন্টারফেস

প্রতিটা মোবাইলের নিজস্বতাই তার আসল পরিচয়। আর একটা মোবাইলের নিজস্বতার প্রকাশ পায় তার ইউজার ইন্টারফেস দেখেই। Walton Primo G7+ এর ইউজার ইন্টারফেসে আপনারা ষ্টক নোগাটের স্বাদ পাবেন। ডায়াল প্যাড, নোটিফিকেশন বার থেকে শুরু করে সকল স্তরেই পাবেন ষ্টক নোগাটের আমেজ। থিম সেকশন থেকে বিভিন্ন প্রকার ষ্টক থিম ব্যবহার করে মোবাইলের লুকস-কে পরিবর্তন করতে পারবেন। এছাড়া বিভিন্ন থার্ডপার্টি লঞ্চার  ইউজ করার স্বাধীনতা তো রয়েছেই।

ক্যামেরা

ডিভাইসটিতে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল অটোফোকাস রিয়্যার ক্যামেরা। ক্যামেরায় ডুয়াল ফ্ল্যাশ ব্যবহার করা হয়েছে। যার ফলে  আপনারা রাতের বেলায়ও ভালো কোয়ালিটি ছবি তুলতে পারবেন। মোবাইল দিয়ে তোলা ছবি আপনারা নিচে দেখতে পারবেন। এছাড়া সেলফি তোলার জন্য রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা উইথ ফ্ল্যাশ লাইট। এছাড়া  Walton Primo G7+ এর রিয়্যার ক্যামেরা দিয়ে ফুল এইচ ডি রেজুল্যুশনে (১০৮০X১৯২০ পিক্সেল) ভিডিও করতে পারবেন। মোবাইল দিয়ে তোলা ছবির কোয়ালিটি মান সম্মত। চলুন এখন মোবাইল দিয়ে তোলা কিছু স্থির চিত্র দেখে নেই।

রিয়্যার ক্যামেরা:

ফ্রন্ট ক্যামেরা:

কানেক্টিভিটি ও সেন্সর

এই মোবাইলের কানেক্টিভিটির মধ্যে রয়েছে ওয়াই-ফাই, ব্লু-টুথ ভার্সন ৪, মাইক্রো ইউ এস বি ভার্সন ২, ওয়াই-ফাই হটস্পট ইত্যাদি।

আর যে সকল সেন্সর ইউজ করা হয়েছে সে গুলো হলো এ্যকসেলোমিটার ৩ডি, লাইট সেন্সর, এবং প্রক্সিমিটি সেন্সর।

ব্যাটারি ব্যাকাপ

এই মোবাইলে ব্যবহার করা হয়েছে ২৮০০ মিলি এ্যাম্পিয়ার লি-আয়ন রিমুভেবল ব্যাটারি। নরমাল ব্রাউজিং, গেমিং, কথা বলা সহ সকল কিছু করার জন্য এই ব্যাটারি ব্যাকাপ দিয়ে ৭-৮ ঘন্টা ইজিলি ব্যাটারি ব্যাকাপ পাবেন।

স্পেশাল ফিচারস

ওটিএ

Primo G7+ এর যাবতীয় সফ্টওয়্যার আপডেট আপনারা অনলাইনেই করতে পারবেন।

মাল্টি উইন্ডো

Primo G7+ এ মাল্টি টাস্কিং দারুন একটি সুবিধা। ডিভাইসের রিসেন্ট এ্যপস থেকে পছন্দ মত এ্যপলিকেশন সিলেক্ট করে মাল্টি টাস্কিং করুন নিজের ইচ্ছে মত।

ডুরা স্পিড

Primo G7+ এর অন্যতম একটি ফিচার হলো ডুরা স্পিড। এই ফাংশনের মাধ্যমে ব্যাকগ্রাউন্ডের যে কোন এ্যপলিকেশন বন্ধ করতে পারবেন। ফলে আপনার ফোনের ব্যাটারী এবং স্পিড দুটোই বৃদ্ধি পাবে। তাই যে এ্যপস গুলো আপনার কাজে কম লাগে সেই এ্যপস গুলো ডুরা স্পিড থেকে অফ করে নিন।

বেঞ্চমার্ক স্কোর

মোবাইল কিনবেন, অথচ মোবাইলের বেঞ্চমার্ক টেষ্ট করবেন না, তা কি হয়? আমরা আপনাদের সুবিধার  জন্যে মোবাইলে এ্যনটুটু বেঞ্চমার্ক, নেনামার্ক এবং গিকবেঞ্চ টেষ্ট করেছি। চলুন এক নজরে দেখে নেই মোবাইলের বেঞ্চমার্ক স্কোর গুলো কেমন। মোবাইলের এ্যনটুটু বেঞ্চমার্ক স্কোর এসেছে ২৩,৯৯৮ এবং নেনামার্ক স্কোর এসেছে ৫১.৪ এফ.পি.এস। এছাড়া আমরা গিকবেঞ্চ টেষ্টও করেছি। চলুন এক নজরে দেখে নেই মোবাইলের গিকবেঞ্চ স্কোর।

দাম

এই মোবাইলের দাম ধার্য করা হয়েছে মাত্র ৮,৫৯০ টাকা। মোবাইলের কনফিগারেশন অনুযায়ী দাম খুব-ই রিজোনেবল এবং হাতের নাগালে। দামে কম আর ফিচারের জন্যই গ্রাহকদের কাছে এই মোবাইলের চাহিদা অন্যান্য মোবাইলের চেয়ে একটু হলেও বেশি।

চলুন, Primo G7 এর সাথে Primo G7+ এর কম্পারিজন দেখে নেই।

                                     বিবরণ
  Primo G7+ Primo G7
ডিসপ্লে ২.৫ ডি ৫.৫” এইচ.ডি ডিসপ্লে ২.৫ ডি ৫.৫” এইচ.ডি ডিসপ্লে
প্রোটেকশন গরিলা গ্লাস ২ গরিলা গ্লাস ২
র‌্যাম ২ জিবি ১ জিবি
রম ১৬ জিবি (৬৪ জিবি এক্সপ্যান্ডেবল ৮ জিবি (৬৪ জিবি এক্সপ্যান্ডেবল)
ক্যামেরা রিয়্যার ১৩ মেগাপিক্সেল রিয়্যার ৮ মেগাপিক্সেল
ফ্রন্ট ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ৮ মেগাপিক্সেল
প্রোসেসর ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর প্রোসেসর ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর প্রোসেসর
ব্যাটারি ২৮০০ মিলি এ্যম্পিয়ার ২৮০০ মিলি এ্যম্পিয়ার
মূল্য ৮,৫৯০ টাকা। ৬,৭৯০ টাকা।
সিদ্ধান্ত

দাম আর ফিচারের কথা যদি আমরা কেউ এখন চিন্তা করি, তাহলে আমার একান্ত অভিমত কেউ চাইলে আমি তাকে অবশ্যই এই মোবাইলটি কিনতে বলবো, কেননা এই দামে এই রকম ফিচার সমৃদ্ধ মোবাইল পাওয়া যাবে খুব কম-ই। তবে আপনাদের সকলের সিদ্ধান্ত-কে আমি ব্যক্তিগত ভাবে শ্রদ্ধা করি। তবে এটা বলতে পারি, এই মোবা্ইল হাতে নিয়ে দেখলে আর ফিচারের কথা চিন্তা করলে এই বাজেটে এই মোবাইলটি হতে পারে একটি ষ্টাইলিশ মোবাইল।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

মন্তব্যসমূহ