শেয়ার

আপনাদের নিশ্চয়-ই মনে আছে ওয়ালটনের Primo S সিরিজের মোবাইলের কথা। এই সিরিজের সর্বশেষ ডিভাইসটি বাজারে এসেছিল প্রায় ২ বছর আগে। Primo S সিরিজের ধারাবাহিক সাফল্যের পর ওয়ালটন আবারো নিয়ে আসলো Primo S সিরিজের ৫ম মোবাইল Primo S5. ৩ জিবি র‌্যাম, ৩২ জিবি ইন্টারনাল মেমোরী, ১৩ মেগাপিক্সেল অটোফোকাস রিয়্যার ক্যামেরা, ফ্রন্ট-এ ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা রয়েছে Primo S5 এ। আর এত কিছু সহ ডিভাইসটির বাজার মূল্য মাত্র ১৪,৯৯০ টাকা। বলতে পারেন ১৪,৯৯০ টাকায় Primo S5 ডিভাইসটি মার্কেটে এই রেঞ্জের মোবাইল গুলোর মধ্যে কম্পিটিশন বাড়িয়ে দিলো। চলুন একটু চোখ বুলিয়ে নেই Primo S5’র বিস্তারিত কনফিগারেশনে:

                               স্পেসিফিকেশন
বিবরণ Walton Primo S5
ডিসপ্লে ৫.৫” এইচ.ডি আই পি এস ডিসপ্লে
প্রোটেকশন গরিলা গ্লাস ৪
রেজুল্যুশন ১২৮০ x ৭২০ পিক্সেল
ও.এস এ্যন্ড্রয়েড ৬.০ মার্শম্যালো।
প্রোসেসর ৬৪ বিট ১.৫ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর প্রোসেসর
জি পি ইউ মালি টি৭২০
র‌্যাম  ৩ জিবি
রম ৩২ জিবি (১২৮ জিবি পর্যন্ত বৃদ্ধি করা যাবে)
ক্যামেরা ১৩ মেগাপিক্সেল রিয়্যার এবং ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি
ব্যাটারি ৩১৫০ মিলি এ্যম্পিয়ার
দাম ১৪,৯৯০ টাকা
স্মার্টফোনটির সাথে যে সকল কিছু অতিরিক্ত পাচ্ছেন
  • চার্জার অ্যাডাপ্টার ও ডাটা কেবল
  • ইয়ারফোন
  • ইউজার ম্যানুয়াল এবং ওয়ারেন্টি কার্ড
  • স্ক্রিন প্রোটেক্টর
       অপারেটিং সিস্টেম

মার্শম্যালো ৬.০ অপারেটিং সিস্টেম রয়েছে স্মার্ট ফোনটিতে।

বিল্ট কোয়ালিটি

প্রথমেই জেনে নেব ডিভাইসটির বডি ডাইমেনশন সম্পর্কে। ডিভাইসটির দৈর্ঘ্য ১৫৪.৪ মিলিমিটার, প্রস্থ্য ৭৬.৬ মিলিমিটার এবং পুরুত্ব ৯.২ মিলিমিটার। ব্যাটারি সহ ডিভাইসটির ওজন রয়েছে ১৭৯ গ্রাম। বডি ডাইমেনশন অনুযায়ী ডিভাইসটি যথেষ্ট্য ইউজার ফ্রেন্ডলী মনে হলেও ডিভাইসটি বেশ স্লিপারী।ডিভাইসটি মেটালিক টেক্সচার যুক্ত হলেও আদতে ডিভাইসটি প্লাষ্টিক মেইড। ডিভাইসটির গ্লসি এবং স্টানিং আউটলুক ডিভাইসটির সৌন্দর্য বাড়িয়ে দিয়েছে বহু গুনে। শাইনি ব্যাকপার্ট টি আলো-তে ভালোভাবে মুভ করলে ব্যাকপার্টে স্পাইডারের ন্যায় লগো দেখা যাবে।ডিভাইসটির ডিসপ্লে-তে ব্যবহার করা হয়েছে ২.৫ ডি ৫.৫” এইচ.ডি আই.পি.এস ডিসপ্লে। ডিসপ্লের সুরক্ষায় ব্যবহার করা হয়েছে ৪র্থ প্রজন্মের গরিলা গ্লাস। ডিভাইসটির ফ্রন্ট প্যানেলে উপরের দিকে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা।ক্যামেরার পাশেই রয়েছে ইয়ার ফোন এবং প্রক্সিমিটি সেন্সর। ডিসপ্লের নিচের দিকে সুপার রেসপঞ্ছিভ ক্যাপাসিটিভ টাচ প্যানেল রয়েছে ৩টি।ক্যাপাসিটিভ টাচ প্যানেলের ঠিক নিচেই রয়েছে মাইক্রো ইউ.এস.বি চার্জিং পোর্ট উইদ নয়েজ রিডিউস প্যানেল।এছাড়া নতুন ফিচার যোগ হয়েছে IR Bluster, যা ৩.৫ মিলিমিটার অডিও পোর্টের পাশেই রয়েছে। IR Bluster রিমোট কন্ট্রোলারের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। যেমন টিভি, এসি ইত্যাদি কন্ট্রোল করা যাবে IR Bluster দিয়ে।ডিভাইসটির ডান দিকে ভলিউম রকার্স এবং পাওয়ার বাটন রয়েছে পাশাপাশি।ডিভাইসটির বাম পাশে রয়েছ হাইব্রিড সিম কার্ড ট্রে। যেখানে এক সাথে ২টা মাইক্রো সিম কার্ড অথবা একটিতে সিম কার্ড এবং অন্যটিতে মাইক্রো এস ডি কার্ড ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।  ব্যাক পার্টে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল BSI Sensor যুক্ত অটোফোকাস ক্যামেরা।নন রিমুভেবল ব্যাকপার্টের অভ্যন্তরে রয়েছে ৩১৫০ মিলি এ্যম্পিয়ারি লি-পলিমার ব্যাটারি। চলুন উপরের আলোচনা গুলো একটু মিলিয়ে নেই।

ইউজার ইন্টারফেস

এ্যমিগো ৩.২ ইউজার ইন্টারফেস রয়েছে ডিভাইসটিতে। এই ইউ.আই’র সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো খুব-ই ইউজার ফ্রেন্ডলি। এছাড়া বেশ কিছু শর্টকাট কমান্ড রয়েছ টুগল প্যানেলে। আরো রয়েছে সাসপেন্ড বাটন। নোটিফিকেশন এবং টুগল প্যানেল রাখা হয়েছে আলাদা। নেই কোন আলাদা এ্যপ ড্রয়ার। টুগল প্যানেলে নতুন সংযোজন হলো Split screen এবং Screen recorder. এই দুই ফাংশন সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে নিচের দিকে। বিল্ট ইন থিম এবং ইউ.আই ট্রানজিশনেও রয়েছে বেশ বৈচিত্র। এছাড়া আরো রয়েছে চ্যামেলিয়ন এ্যাপলিকেশন। এই এ্যপলিকেশনটি ক্যামেরার মাধ্যমে আপনার পছন্দ মত আলাদা থিম তৈরী করতে সক্ষম।

  র‌্যাম এবং  রম

Primo S5-এ রয়েছে ৩ জিবি ডি ডি আর ৩ র‌্যাম। প্লাস পয়েন্ট হলো ৩২ জিবি ইন্টারনাল মেমোরী কার্ড রয়েছে ডিভাইসটিতে। শর্ত সাপেক্ষে ১২৮ জিবি পর্যন্ত ইন্টারনাল মেমোরী বাড়ানো যাবে।

সি.পি.ইউ এবং জি.পি.ইউ

Primo S5-এ রয়েছে পাওয়ারফুল ১.৫ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর প্রোসেসর। এছাড়া গ্রাফিক্স প্রোসেসিং এর জন্য রয়েছ মালি টি৭২০ জি পি ইউ।

ডিসপ্লে এবং টাচ

Primo S5-এ রয়েছে ২.৫ ডি ৫.৫” এইচ.ডি আই.পি.এস ডিসপ্লে যার রেজুল্যুশন হলো ১২৮০ x ৭২০ পিক্সেল। ডিসপ্লে প্রোটেকশনের জন্য রয়েছে ৪র্থ প্রজন্মের গরিলা গ্লাস। স্ক্রিন প্রোটেকশনের জন্য এই ভার্সনটি খুব-ই প্রচলিত এখন। টাচ রেছপঞ্ছ খুব-ই ভালো, ল্যাগিং ছিলোনা। ডিভাইসটিতে ৫ আঙ্গুল পর্যন্ত মাল্টি টাচ সাপোর্ট করে।

ক্যামেরা

Primo S5 এর ক্যামেরায় বেশ কিছু নতুন ফিচার এ্যড করা হয়েছে। বিশেষ করে কার্ড স্ক্যানার এবং ট্র্যান্সলেটর। এছাড়া আরো রয়েছে HDR, Professional Mode, Panaroma, Smart Scan, GIF থেকে শুরু করে আরো অনেক কিছু। ডিভাইসটির ফ্রন্ট প্যানেলে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা। ফ্রন্ট ক্যামেরায় F2.2 এ্যপাচার ব্যবহার করা হয়েছে। রিয়্যার প্যানেলে রয়েছে BSI Sensor যুক্ত ১৩ মেগাপিক্সেল অটো ফোকাস ক্যামেরা। বিলম্ব না করে ডিভাইসটি দিয়ে তোলা কিছু স্থির চিত্র দেখে নেই।

দেখতেই পাচ্ছেন ডিভাইসটির ক্যামেরা কোয়ালিটি অসাধারণ। চলুন সেলফি’র নমুনা দেখে নেই।

সেলফি:

বেঞ্চমার্ক

Primo S5’র এ্যনটুটু এবং নেনামার্ক স্কোর এসেছে যথাক্রমে ৩৯,১০৪  এবং ৬১.৪ এফ পি এস। পাশাপাশি আমরা গিক বেঞ্চ টেষ্টও করেছি। চলুন রেজাল্ট গুলো দেখে নেই।

কানেক্টিভিটি এবং সেন্সর

Primo S5-এ যে সকল কানিক্টিভিটি রয়েছে তা হলো: ওয়াই-ফাই, ব্লু-টুথ ভার্সন ৪, মাইক্রো ইউ.এস.বি ভার্সন ২, ও.টি.জি, ও.টি.এ এবং ডব্লিউ ল্যান হটস্পট ইত্যাদি। ডিভাইসটিতে রয়েছে বেশ কিছু সেন্সর। সেন্সর গুলোর মধ্যে রয়েছে এ্যকসেলোমিটার, প্রক্সিমিটি সেন্সর, কম্পাস, IR Bluster ইত্যাদি।

স্পেশাল ফিচার

ওটিএ

Primo S5 এর সকল প্রকার আপডেট আপনারা ও.টি.এ’র মাধ্যমে অনলাইনেই করতে পারবেন।

 স্প্লিট স্ক্রিন

এক সাথে বেশ কয়েকটি উইন্ডোতে কাজ করা যাবে স্প্লিট স্ক্রিন অপশনের ফলে। ম্যাসেজিং, ক্যালকুলেটিং থেকে শুরু করে আরো অনেক ফাংশনের কাজ এক সাথে করা যাবে।

স্ক্রিন রেকর্ডার

স্ক্রিন রেকর্ড একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আজকের দিনে। স্ক্রিন রেকর্ড করার জন্য যে সকল থার্ড পার্টি এ্যপলিকেশন রয়েছে তার মধ্যে বেশির ভাগ-ই কাজ করেনা। আবার অনেক এ্যপলিকেশন আছে যে গুলো রুট ছাড়া কাজ-ই করবেনা। কিন্তু বিল্ট ইন রেকর্ড অপশন থাকায় স্ক্রিন রেকর্ড করা এখন আপনার হাতের নাগালে।

ডাবল ট্যাপ টু ওয়েক আপ

স্লিপ মোডে থাকা অবস্থায় ডিভাইসে ডাবল ট্যাপ করলেই ডিভাইসটির স্ক্রিন অন হবে।

গেমিং এক্সপিরিয়েন্স

ডিভাইসটির ৩ জিবি ডি.ডি.আর ৩ র‌্যাম আর মালি টি৭২০ জি.পি.ইউ গেমিং এক্সপিরিয়েন্সকে আরো ত্বরান্তিত করেছে। আমরা ডিভাইসটি-তে এসফাল্ট ৮, মডার্ন কম্ব্যাট থেকে শুরু করে ফিফা গেমস গুলো রান করেছি। খুব-ই স্মুদ রান করেছে গেমস গুলো।

দাম

Primo S5’র দাম রাখা হয়েছে ১৪,৯৯০ টাকা।

মন্তব্যসমূহ