শেয়ার

Primo G7, ওয়ালটনের প্রথম এ্যন্ড্রয়েড নোগাট ডিভাইস। মিডিয়াম বাজেটে ওয়ালটনের আরো একটি বৈপ্লবিক সংস্করণ। দেশীয় মোবাইল হিসেবে ওয়ালটন বরাবরই গ্রাহক এবং ইউজারদের কথা মাথায় রেখে স্মার্টফোন লঞ্চ করে। যেহেতু এখন নোগাটের যুগ, তাই ওয়ালটনও পিছিয়ে নেই। Primo G7 এ রয়েছে ১ জিবি র‌্যাম, ৮ জিবি বিল্ট ইন মেমোরী এবং ২৮০০ মিলি এ্যম্পিয়ার সুপার ব্যাকাপ ব্যাটারি। আর এত কিছুর পরেও ডিভাইসটির দাম রাখা হয়েছে ৬,৭৯০ টাকা। এক নজরে দেখে নেই Primo G7 সম্পর্কে।

                                     স্পেসিফিকেশন
বিবরণ Walton Primo G7
ডিসপ্লে ২.৫ ডি, ৫.৫” এইচ.ডি আই পি এস ডিসপ্লে
প্রোটেকশন গরিলা গ্লাস ২
রেজুল্যুশন ১২৮০ x ৭২০ পিক্সেল
ও.এস এ্যন্ড্রয়েড ৭.০ নোগাট
প্রোসেসর ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর প্রোসেসর
জি পি ইউ মালি ৪০০
র‌্যাম ১ জিবি
রম ৮ জিবি (৬৪ জিবি পর্যন্ত বৃদ্ধি করা যাবে)
ক্যামেরা ৮ মেগাপিক্সেল রিয়্যার এবং ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি
ব্যাটারি ৩১৫০ মিলি এ্যম্পিয়ার
দাম ৬,৭৯০ টাকা

Primo G7 ডিভাইসের সাথে আপনারা যে সকল এক্সেসরিজ পাচ্ছেন:

  • চার্জার অ্যাডাপ্টার ও ডাটা কেবল
  • ইয়ারফোন
  • ইউজার ম্যানুয়াল এবং ওয়ারেন্টি কার্ড
অপারেটিং সিস্টেম

এ্যন্ড্রয়েড নোগাট ৭.০ অপারেটিং সিস্টেম দেয়া হয়েছে Primo G7 এ। ওয়ালটনের এটাই প্রথম স্মার্টফোন যেখানে এ্যন্ড্রয়েড নোগাট অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে ব্যবহার করা হলো। ব্যপারটা কিন্তু দারুন, কাম দামেই নোগাটের টেষ্ট পাবেন ইউজার-রা।

বিল্ট কোয়ালিটি

Primo G7 এর ব্যক কভারের এজ গুলো কার্ভ করা হয়েছে হ্যান্ড গ্রিপ ভালো এবং  স্মুদ রাখার জন্য। রিয়্যার প্যানেলে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। ক্যামেরায় ডুয়াল ফ্ল্যাশ লাইটও রয়েছে অল্প আলোতে ছবি তোলার জন্য।লাউড স্পিকার রয়েছে ব্যাক প্যানেলের একদম নিচের দিকে।প্লাষ্টিক মেইড ডিভাইসটির ফ্রন্ট প্যানেলে উপরের অংশে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা উইদ ফ্ল্যাশ লাইট। ফ্ল্যাশ লাইটের পাশে রয়েছে প্রক্সিমিটি সেন্সর এবং ইয়ারফোন।ডিসপ্লে-তে ব্যবহার করা হয়েছে ৫.৫” ২.৫ ডি কার্ভড আই.পি.এস ডিসপ্লে। ডিসপ্লের নিচের অংশে রয়েছে ৩টি ক্যাপাসিটিভ সফ্ট টাচ প্যানেল।মাইক্রো ইউ.এস.বি এবং ৩.৫ মিলিমিটার অডিও পোর্ট রয়েছে ডিভাইসের উপরের অংশে। এছাড়া মাইক্রোফোন রয়েছে ডিভাইসটির বটম সাইডে।ডিভাইসটির দৈর্ঘ্য ১৫২ মিলিমিটার, প্রস্থ্য ৮০ মিলিমিটার এবং পুরুত্ব ১০.৫ মিলিমিটার। ব্যাটারি সহ ডিভাইসটির ওজন ১৯০ গ্রাম।

একটু মিলিয়ে নেই এতক্ষন যে সকল বিষয় গুলো আলোচনা করলাম।

ইউজার ইন্টারফেস

এ্যন্ড্রয়েড ৭.০ নোগাটে রান করছে ডিভাইসটি। সো স্বাভাবিক ভাবেই স্টক ইউজার ইন্টারফেইস-ই পাবেন Primo G7 এ। ইতিপূর্বে যারা মার্শম্যালো এবং ললিপপ ও.এস ইউজ করেছেন তাদের কাছে নোগাটের ইউজার ইন্টারফেস সম্পূর্ণ নতুন লাগবে। এ্যপ ড্রয়ারটি সম্পূর্ণ নতুন ভাবে সাজানো হয়েছে। এছাড়া আরো কিছু স্পেশাল ফিচার রয়েছে যা আমরা নিচের অংশে আলোচনা করেছি।

র‌্যাম এবং রম

 Primo G7 এ রয়েছে ১ জিবি র‌্যাম এবং ৮ জিবি ইন্টারনাল মেমোরী। এছাড়া ৬৪ জিবি পর্যন্ত অতিরিক্ত মেমোরী কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন।

সি.পি.ইউ এবং জি.পি.ইউ

Primo G7 এ ১.৩ গিগাহার্টজ কোয়াডকোর প্রোসেসর এবং মালি ৪০০ জি.পি.ইউ ব্যবহার করা হয়েছে।

ডিসপ্লে এবং টাচ

 Primo G7 এ রয়েছে ২.৫ ডি ৫.৫” এইচ.ডি আই.পি.এস ডিসপ্লে যার রেজুল্যুশন হলো ১২৮০ x ৭২০ পিক্সেল। ডিসপ্লে প্রোটেকশনের জন্য রয়েছে ২য় প্রজন্মের গরিলা গ্লাস। ২.৫ ডি কার্ভড গ্লাস ডিসপ্লে-তে ব্যবহার করায় টাচ খুব-ই রেছপঞ্ছিভ। ডিভাইসটির ভিউয়িং এ্যঙ্গেল চমৎকার। ২ আঙ্গুল পর্যন্ত মাল্টি টাচ সাপোর্ট করে ডিভাইসটিতে।

ক্যামেরা

ছবি তোলার জন্য Primo G7 এর ব্যাক প্যানেলে রয়েছে বি.এস.আই সেন্সর যুক্ত ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা উইদ ডুয়াল ফ্ল্যাশ লাইট। ক্যামেরার ফিচার গুলোর মধ্যে রয়েছে নরমাল মোড, ফেস বিউটি, এইচ.ডি.আর সহ প্যানারোমা মোড। ক্যামেরা কোয়ালিটি যথেষ্ট্য মান সম্পন্ন। রিয়্যার ক্যামেরা দিয়ে ফুল এইচ.ডি রেজুল্যুশনে ভিডিও রেকর্ড করার পাশাপাশি ফুল এইচ ডি ভিডিও প্লে-ব্যাকও করতে পারবেন। সেলফি লাভারদের জন্য রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা যা সেলফি তোলার জন্য যথেষ্ট্য ভালো। এছাড়া সেলফি ক্যামেরার সাথে ফ্ল্যাশ লাইটও ব্যবহার করা হয়েছে। চলুন, ক্যামেরা দিয়ে তোলা কিছু ছবি দেখে নেই।

সেলফি:

বেঞ্চমার্ক

Primo G7 এর এ্যনটুটু এবং নেনামার্ক স্কোর এসেছে যথাক্রমে ২৪,১৭৬ এবং ৫৫.৪ এফ পি এস। ডিভাইসটির স্কোর সমসাময়িক ডিভাইস গুলোর সাথে যথেষ্ট্য কম্পেটিটিভ।

কানেক্টিভিটি এবং সেন্সর

Primo G7 এ যে সকল কানিক্টিভিটি রয়েছে তা হলো: ওয়াই-ফাই, ব্লু-টুথ ভার্সন ৪, মাইক্রো ইউ.এস.বি ভার্সন ২,  ও.টি.এ এবং ডব্লিউ ল্যান হটস্পট।

ডিভাইসটিতে রয়েছ বেশ কিছু সেন্সর। সেন্সর গুলোর মধ্যে রয়েছে এ্যকসেলোমিটার, প্রক্সিমিটি সেন্সর, এবং লাইট সেন্সর।

স্পেশাল ফিচার

ওটিএ

Primo G7’র সকল প্রকার আপডেট আপনারা ও.টি.এ’র মাধ্যমে অনলাইনেই করতে পারবেন।

মাল্টি উইন্ডো

Primo G7 এ মাল্টি টাস্কিং করা খুব-ই সহজ। ডিভাইসটির রিসেন্ট এ্যপস থেকে যে কোন একটি এ্যপলিকেশন ট্যাপ এবং হোল্ড করুন, আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন কি করতে হবে।

ডুরা স্পিড

Primo G7 এর অন্যতম একটি ফিচার হলো ডুরা স্পিড। এই ফাংশনের মাধ্যমে ব্যাকগ্রাউন্ডের যে কোন এ্যপলিকেশন বন্ধ করতে পারবেন। ফলে আপনার ফোনের ব্যাটারী এবং স্পিড দুটোই বৃদ্ধি পাবে। তাই যে এ্যপস গুলো আপনার কাজে কম লাগে সেই এ্যপস গুলো ডুরা স্পিড থেকে অফ করে নিন।

ডোন্ট ডিস্টার্ব মোড:

এই অপশনটি চালু করলে আপনার স্মার্টফোনটি একেবারেই সাইলেন্ট মোডে চলে যাবে।

গেমিং এক্সপিরিয়েন্স

ডিভাইসটি গেমিং এক্সপিরিয়েন্স আমার কাছে খুব একটা সন্তোস জনক নয়। হাই এন্ডের গেমস গুলো ল্যাগ করবে, তবে লো রেঞ্জ গেইমস গুলো বিশেষ করে সাবওয়ে সার্ফার, রেইল র‌্যাশ গেমস গুলো ভালো ভাবেই রান করবে।

দাম

ওয়ালটনের প্রথম এ্যন্ড্রয়েড নোগাট ডিভাইস Primo G7 এর দাম রাখা হয়েছে ৬,৭৯০ টাক।

সিদ্ধান্ত

এই বাজেটে আপনারা কেউ যদি এর চেয়ে ভালো ডিভাইস খুজতে যান তো বোকামি ছাড়া আর কিছুই না। মার্কেট যাচাই করুন, বুঝতে পারবেন।

মন্তব্যসমূহ