শেয়ার
Walpad G2 - কম দামে অসাধারণ একটি ট্যাব

স্মার্টফোনের এই যুগে আজকাল ট্যাব একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে রেখেছে। মূলত ট্যাব এর বড় সাইজের স্ক্রিনের জন্যই এর কদর। কিন্তু কম দামের মধ্যেই যদি একটি খুবই ভাল পারফরমেন্স এর ট্যাব পাওয়া যায় তো কেমন হয়?

ওয়াল্টন নিয়ে এল তাদের নতুন ট্যাব Walpad G2,  মাত্র ৮,৪৯০ টাকায় ওয়াল্টন নিয়ে এল একটি পারফর্মার ট্যাব – Walpad G2.

১.৩ গিগা হার্জ কোয়াড কোর প্রসেসর, ১ জিবি র‌্যাম, মালি ৪০০ জি.পি.ইউ সহ এই ফোনটির পারফরমেন্স আসলেও চমকপ্রদ। আজ, আমরা তাই আপনাদের জন্য নিয়ে এলাম ওয়াল্টন এর এই ট্যাব, Walpad G2 এর হ্যান্ডস অন রিভিউ।

প্রথমেই কিছু পয়েন্টেড আউট ফিচারস, ট্যাব টি নিয়ে বলতে গেলে ১ম এই যা বলতে হয়ঃ

  • এন্ড্রয়েড ৫.১ ললিপপ
  • সিঙ্গেল সিম কার্ড স্লট
  • ৮ ইঞ্চি এইচ.ডি ডিসপ্লে (রেজুলেশন ১২৮০x৮০০ পিক্সেল)
  • ১.৩ গিগাহার্জ কোয়াড কোর প্রসেসর
  • ১ জিবি র‌্যাম
  • ১৬ জিবি রম
  • মালি ৪০০ এম পি জিপিইউ
  • ৫ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা
  • ১.৩ মেগাপিক্সেল এর ফ্রন্ট ক্যামেরা

ট্যাবটির সাথে বক্সে আপনারা যা যা পাবেনঃ

  • চার্জার এ্যডাপ্টার এবং ডাটা ক্যাবল
  • ইয়ার ফোন
  • ইউজার ম্যানুয়াল এবং ওয়্যারেন্টি কার্ড
  • একটি স্ক্রিন প্রোটেক্টর

Screenshot_1

অপারেটিং সিস্টেম

এই ট্যাবটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে বর্তমানে বাংলাদেশ এ বহুল প্রচলিত ও.এস এ্যন্ড্রয়েড ললিপপ ব্যবহার করা হয়েছে।

Lollipop

ডিজাইন  বিল্ড কোয়ালিটি


Walpad G2 ট্যাবটির ডিজাইন ও বিল্ড কোয়ালিটি খুবই এট্রাক্টিভ। এই ট্যাবের বিশাল সাইজ সত্ত্বেও এর ওজন তূলনামূলক কম।

প্লাষ্টিক মেইড ডিভাইসের দৈর্ঘ্য ২০৭.৩ মিলি, প্রস্থ্য ১২৩.৫ মিলিমিটার এবং পুরুত্ব ৯.৫ মিলিমিটার।

Screenshot_8

ট্যাবটির একটি অন্যরকম দিক হচ্ছে এতে পাওয়ার ও ভলিউম হার্ড কী এর সাথে সাথে ব্যাক কী ও হার্ড কী হিসেবে পাওয়ার ও ভলিউম বাটন এর নিচেই দেওয়া হয়েছে।

Screenshot_17

এছাড়াও এর সিম কার্ড স্লট ও মেমোরি কার্ড স্লট ও বাইরের দিকে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ট্যাবটির ৩.৫ মিলিমিটার অডিও জ্যাক পোর্ট এবং ইউ.এস.বি ও.টি.জি ও চার্জিং পোর্ট উপরের দিকে দেওয়া হয়েছে।Screenshot_18

Walpad G2 এর পিছনের দিকে উপরে রয়েছে রিয়ার ক্যামেরা। নিচের দিকে স্পীকার ও সাউন্ড ক্যাপচারার রয়েছে। ট্যাবটির সামনের দিকে উপরে হেডপিস ছাড়াও ফ্রন্ট ফেসিং ক্যামেরা , লাইট ও প্রক্সিমিটি সেন্সর দেওয়া হয়েছে।

Screenshot_15

ডিসপ্লে

Walpad G2 তে ডিসপ্লে হিসেবে ৮ ইঞ্চি এইচ.ডি ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে। ডিসপ্লে রেজুল্যুশন ১২৮০x ৮০০। Walpad G2 এর ডিসপ্লে যথেষ্ট পাতলা ফলে ওভার অল ট্যাবটির পুরুত্ব কমেছে। এতে স্ক্রিন প্রোটেক্টর হিসেবে কর্নিং গরিলা গ্লাস দেওয়া হয়েছে। বরাবরের মত এই ট্যাবটিতে ক্যাপাসিটিভ টাচ স্ক্রিন ইউজ করা হয়েছে। এতে ৫ আঙ্গুল পর্যন্ত মাল্টিটাচ সাপোর্ট করে। এছাড়া ডিসপ্লেতে মিরাভিশন প্রযুক্তি থাকায় কালার কম্বিনেশন নিজেই সিলেক্ট করে নিতে পারবেন।

ইউজার ইন্টারফেস

এই ট্যাবটির ইউজার ইন্টারফেস অত্যন্ত চমৎকার। এই ট্যাব এর লাঞ্চার এর ট্রানজিশন খুব-ই স্মুথ। এতে কোন প্রকার ল্যাগ নেই। এই ট্যাবটির নোটিফিকেশন বার সিম্পল ষ্টক এন্ড্রয়েড ললিপপের নোটিফিকেশন বার-এর মতই। সম্পূর্ণ ষ্টক ললিপপের আমেজ পাবেন এই ট্যাব এ। ট্যাবটি-তে হোম, অপশনস ও ব্যাক বাটন নেভিগেশন বারে এড করা হয়েছে।

প্রসেসর এবং জি.পি.ইউ

প্রসেসর হিসেবে এই ট্যাব এ ১.৩ গিগাহার্টজ ক্লক স্পীড এর চার কোরের প্রসেসর দেওয়া হয়েছে। দ্রুতগতির প্রসেসর ব্যবহৃত হওয়ায় এই ট্যাব মাল্টিটাস্কিং, এইচডি গেমিং প্রভৃতি বেশ স্মুথলি করা যায়। এছাড়া যে কোন প্রসেসিং এর কাজ খুব দ্রুত সম্পন্ন হয়।

এতে জি.পি.ইউ হিসেবে মালি ৪০০ এম.পি ব্যবহৃত হয়েছে। এই জি.পি.ইউ তে বেশির ভাগ এইচ.ডি গেম ও ভিডিও ল্যাগ ছাড়া খুবই চমৎকার পার্ফরমেন্স দেয়।

CPU

র‌্যাম এবং রম

Walpad G2 এ র‌্যাম হিসেবে ১ জিবি র‌্যাম ব্যাবহার করা হয়েছে। সেটটিতে এই ১ জিবি র‌্যাম খুবই ভাল ব্যাকাপ দেয়। অবশ্য প্রোপার ব্যাকাপ পাওয়ার জন্য ইউজার এর সতর্কতাও প্রয়োজন। এই ট্যাব এ ১৬ জিবি ইউনিফাইড রম দেওয়া হয়েছে যার মধ্যে ১১.৭   জিবি রাখা হয়েছে এপ্স ইন্সটল এবং ফোন স্টোরেজ এর জন্য। অর্থাৎ এতে অনেক এপ্স ইন্সটল করলেও স্পেস শেষ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। বাকিটা সিস্টেম রিজার্ভড। এক্সট্রা এস ডি কার্ড হিসেবে আপনি এতে ৩২ জিবি মাইক্রো এস ডি কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন।

Ram

ক্যামেরা

Walpad G2 এ রিয়ার ক্যামেরা হিসেবে ৫ মেগাপিক্সেল এর CMOS সেন্সর সম্বলিত ক্যামেরা দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া এর ক্যাপচারিং স্পীড ও ভাল। চলুন আমরা এই ট্যাবের ক্যামেরা দিয়ে তোলা কয়েকটি ছবি দেখিঃ

Screenshot_21 Screenshot_20 Screenshot_19

এছাড়া, ট্যাবটির ১.৩ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা  এর ক্যাপচার কোয়ালিটি ও খুব ভাল।

মাল্টিমিডিয়া

এই ট্যাবটিতে ৩.৫ মিলিমিটার এর অডিও জ্যাক পোর্ট দেওয়া আছে। ট্যাবটির সাথে যে হেডফোন টি দেওয়া থাকবে সেটার অডিও কোয়ালিটি আমার কাছে খুব ভাল লেগেছে। এর সাহায্যে এফ এম বা মিউজিক শুনে খুব ভাল লাগল। তাছাড়া, ট্যাব এর সাউন্ড কোয়ালিটি ও ভাল। তাছাড়া এই ট্যাব এ ১০৮০পি ভিডিও ও ল্যাগহীন ভাবে চলে।

গেমিং

এখনকার দিনে গেমিং হল যে কোন স্মার্টফোন কেনার একটি অন্যতম উদ্দেশ্য। আপনাদের কথা মাথায় রেখেই আমরা এই ট্যাব টিতে সাবওয়ে সারফার, এসফাল্ট ৮, মডার্ন কম্ব্যাট ৪ প্রভৃতি গেম রান  করে দেখেছি। গেমগুলা টোটালি স্মুথলি কোন ল্যাগহীন ভাবেই চালাতে পেরেছি আমরা।

কানেক্টিভিটি এবং সেন্সর

এই ফোনে ব্লুটুথ ৪.০, ওয়াইফাই, ওয়্যারলেস হটস্পট, ওয়্যারলেস ডিসপ্লে শেয়ারিং প্রভৃতি কানেক্টিভিটি সুবিধা রয়েছে। এছাড়া জিপিএস ও নেভিগেশন সুবিধাতো রয়েছেই।

Walpad G2 এ অ্যাক্সেলারো মিটার, প্রক্সিমিটি সেন্সর ও লাইট সেন্সর দেওয়া হয়েছে।

Sensor

ব্যাটারি

এই ট্যাব এ ৪০০০ মিলি এম্পিয়ার এর লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি ব্যাবহার করা হয়েছে। এর ব্যাটারি ব্যাকআপ খুবই ভাল। এই বিশাল ব্যাটারির কারণে আপনি মোটামোটি অনেকক্ষন ট্যাব টি একটানা ব্যবহার করতে পারবেন। এর ব্যাটারি ব্যাকআপ নিয়ে চিন্তিত হওয়ার কোন কারণ ই নেই আপনার।

বেঞ্চমার্ক টেস্টস

সাধারণত কোন স্মার্টফোনের এর বেঞ্চমার্ক টেস্ট করে স্কোর দেখে তা ব্যবহার না করেই এর পার্ফরমেন্স সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। তো, আমরা তাই বেঞ্চমার্ক টেস্ট করার জন্য এ্যন্টুটু বেঞ্চমার্ক ব্যবহার করি। এতে এর স্কোর এসেছে ২৫,২৪৯ এবং গ্রাফিক্স টেস্ট করার এপ নেনামার্ক ২ তে এর স্কোর এসেছে ৫৪, এই স্কোর টিই বলে দিচ্ছে এই সেট এ এইচডি গেম বা ভিডিও কোন ল্যাগ ছাড়া প্লে করা যাবে।

pixlr

ওটিজি

Walpad G2 এ ও.টি.জি সুবিধা থাকায় আপনি ট্যাব এর সাথে দেওয়া ওটিজি ক্যাবল ব্যবহার করে এক্সটার্নাল হার্ডডিস্ক,  পেনড্রাইভ, মেমোরি  কার্ডরীডার, কীবোর্ড,  মাউস,  মডেম সহ আরো অনেক ইউ এস বি ইনেবলড ডিভাইস ইউজ করতে পারবেন।

Screenshot_5

ওটিএ

এই সুবিধা থাকার ফলে পিসির সাহায্য ছাড়াই আপনি আপনার ট্যাব এর যেকোন প্রকার অফিসিয়াল সিস্টেম আপডেট ফোনের সাহায্যেই ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন। কোন প্রকার সিস্টেম আপডেট চেক এর জন্য কাস্টোমার কেয়ার এও যোগাযোগ করতে হবে না।

মূল্য

স্টাইলিশ ও খুবই ভাল কনফিগারেশন এর এই ট্যাবের দাম ওয়াল্টন কর্তৃপক্ষ ৮,৪৯০ টাকা নির্ধারণ করেছে। সেটের কনফিগারেশন ও স্টাইল অনুযায়ী এই দাম সাধারণ ইউজারদের জন্য পারফেক্ট!!

শেষ কথা

ভাল পারফরমেন্স ও স্টাইলিশ এই ট্যাবটির দুয়েকটি সীমাবদ্ধতা ছাড়া আর কোন সমস্যা নেই। তাছাড়া ট্যাব এর মূল ধারা বজায় রেখে এতেও ব্যাবহার করা হয়েছে বিশাল এবং উন্নত টেকনোলজি সমৃদ্ধ ডিসপ্লে। তাই যারা এই বাজেটে ট্যাব কিনার কথা ভাববেন , Walpad G2 তাদের প্রথম এবং প্রধান সিদ্ধান্ত হওয়া উচিৎ।

ওয়াল্টন বর্তমানে বিভিন্ন সেলফোন এর পাশাপাশি ট্যাব নির্মাণেও কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। আগে থেকেই কম দামে স্মার্টফোন এনে ওয়াল্টন স্মার্টফোনের বাজারে সাড়া ফেলেছে। এখন কম দামে ট্যাব আনার দিকেও তারা আরেকধাপ এগিয়ে এল। ভবিষ্যতে এমনি আরো ট্যাব এনে ট্যাব প্রেমীদেরও ওয়াল্টন খুশি করবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

 

 

মন্তব্যসমূহ