শেয়ার

Walton Primo E5 হ্যান্ডস অন রিভিউ

কম দামে Awesome একটি এন্ড্রয়েড ডিভাইস

বাংলাদেশের স্মার্টফোন সমগ্রে দিন কে দিন নতুন নতুন ডিভাইস নিয়ে আসায় যে কোম্পানির নাম সবার আগে এগিয়ে আসে তা নিঃসন্দেহে ওয়াল্টন। ওয়াল্টন আমাদের দেশেই নিত্য নতুন লো বাজেটের ফোন ক্রেতাদের সামনে নিয়ে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় তারা এনেছে তাদের নতুন এড্রয়েড ৪.৪.২ কিটক্যাট চালিত এন্ড্রয়েড ডিভাইস ওয়াল্টন প্রিমো ই৫। মাত্র ৪৯৫০ টাকায় এই ফোনের কনফিগারেশন বেশ ইম্প্রেসিভ। অতি সম্প্রতিই ওয়াল্টন বাজারে ফোনটি লঞ্চ করেছে। তো, আর কথা না বাড়িয়ে চলুন ফোনটির এক্সক্লুসিভ হ্যান্ডস অন রিভিউ টি দেখে আসি।

ওয়াল্টন প্রিমো ই৫ এর এই রিভিউটি আমরা বেশ কয়েকটি ভাগে ভাগ করেছি। আপনি ইচ্ছা করলে নিচে যেকোন একটি স্পেসিফিক অংশের রিভিউ পেতে চাইলে নিচে ক্লিক করে সরাসরি ওখানে চলে যেতে পারেন।
* পয়েন্টেড আউট ফিচারস
* আনবক্সিং
* অপারেটিং সিস্টেম
* ডিজাইন ও বিল্ড কোয়ালিটি
* ডিসপ্লে
* ইউজার ইন্টারফেস
* ক্যামেরা
* মাল্টিমিডিয়া
* কানেক্টিভিটি এন্ড টেলিফোনি
* সেন্সরস
* পারফরমেন্স (বেঞ্চমার্ক স্কোর)
* ফোনটির সার্বিক বিষয় বিবেচনায় মন্তব্য

প্রথমেই, পয়েন্টেড আউট ফিচারস। ওয়াল্টন প্রিমো ই৫ নিয়ে কথা বলতে গেলে ১ম এই বলতে হয়ঃ
১. ১ গিগাহার্জ ডুয়াল কোর প্রসেসর
২. ৫১২ মেগাবাইট র‍্যাম, ৪ জিবি রম
৩. মালি ৪০০ জিপিইউ
৪. এন্ড্রয়েড ৪.৪.২ কিটক্যাট অপারেটিং সিস্টেম
৫. ৪.৫ ইঞ্চি FWVGA ডিসপ্লে
৬. OTA আপডেট ইনাবল্ড
৭. Accelerometer সেন্সর আছে
৮. ৩.২ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা
৯. মূল্য মাত্র ৪৯৫০ টাকা

এবার আসা যাক আনবক্সিং এ। ফোনটির সাথে যা যা থাকছেঃ
১. একটি চার্জার এডাপ্টার ও ইউএসবি কেবল
২. এক্সট্রা স্ক্রিন প্রটেক্টর
৩. রিমুভেবল ব্যাটারি
৪. ইয়ারফোন
৫. ইউজার ম্যানুয়াল ও ওয়ারেন্টি কার্ড

অপারেটিং সিস্টেমঃ
ফোনটিতে ৪.৪.২ কিটক্যাট ব্যবহার করা হয়েছে। বিশ্ব বাজারে এন্ড্রয়েড এর এই ভার্সন বেশ পুরোনো হয়ে গেলেও বাংলাদেশে আমদানীকৃত ও ম্যানুফ্র্যাকচারকৃত বেশির ভাগ ফোনই এখন ও এই অপারেটিং সিস্টেম চলছে। তবে চিন্তার কোন কারণ নেই। ওয়াল্টন এর ওটিএ আপডেট তো আছেই। আশা করা যাচ্ছে কিছুদিনের মধ্যেই ফোনটি ললিপপ আপডেট পাবে। তবে আপডেট পেলেও এই লো এন্ড ফোনটি তা কিভাবে হ্যান্ডল করবে তা দেখার বিষয়।

Screenshot_2015-01-01-10-26-01

ডিজাইন ও বিল্ডঃ
ফোনটির ডিজাইন এজ ইউজুয়াল খুবই ভাল। ফোনটির পাওয়ার বাটন এবং ভলিউম রকারস রয়েছে এর বাম দিকে। এর চার্জিং পোর্ট এবং অডিও জ্যাক পোর্ট নিচের দিকে দেয়া হয়েছে।

11541633_10204004654786263_1303260759_o 11701491_10204004654986268_1869683128_o

ফোনটির ব্যাককভার টি অনেকটাই কমফোর্টেবল ও ইউজার ফ্রেন্ডলি… ফোনটি হ্যান্ডল করতে তাই কোন প্রব্লেম হয় না।

11720919_10204004654866265_576307962_o

ফোনটির পিছনে রয়েছে রিয়ার ক্যামেরা, ফ্ল্যাশ ও অডিও আউটপুট চ্যানেল। সামনে রয়েছে ফ্রন্ট ক্যামেরা, লাইট ও প্রক্সিমিটি সেন্সর ও ক্যাপাসিটিভ হার্ডওয়্যার টাচ বাটনস।

11701463_10204004655226274_1913320539_o

ফোনটি ১৩৪.৪ মিমি দীর্ঘ, ৬৮ মিমি প্রশস্থ এবং ১০ মিমি পুরু।

ডিসপ্লেঃ
প্রিমো ই৫ এ ব্যবহৃত হয়েছে ৪.৫ ইঞ্চি FWVGA ডিসপ্লে। ফোনটির এই মডারেটেড সাইজের ডিসপ্লে অনেকেরই পছন্দ হবে। ডিসপ্লে টি এত বড় নয় যে হ্যান্ডল করতে সমস্যা হবে, আবার এত ছোট ও না যে মাল্টিমিডিয়া বা গেমিং এর ফুল এক্সপেরিয়েন্স পাওয়া যাবে না।
এছাড়া ফোনটিএ ২ আঙ্গুল পর্যন্ত মাল্টিটাচ সাপোর্ট করে।

Screenshot_2015-01-01-06-14-09

ইউজার ইন্টারফেসঃ
ওয়াল্টনের অন্যান্য ফোনের মতই এই ফোনের ইউজার ইন্টারফেস ও খুব কাস্টোমাইজড। যার ফলে স্টক এন্ড্রয়েড এর তুলনায় এই ফোনের ইউজার ইন্টারফেস টি বেশি স্টাইলিশ এবং ইউজার ফ্রেন্ডলি ও বটে। ফোনটির স্টক লাঞ্চার এ কোন প্রকার ল্যাগ দেখা যায় নি। 🙂

Screenshot_2015-01-01-10-24-17 Screenshot_2015-01-01-10-24-56 Screenshot_2015-01-01-10-25-11 Screenshot_2015-01-01-10-25-22 Screenshot_2015-01-01-10-25-31 Screenshot_2015-01-01-10-25-46 Screenshot_2015-01-01-10-27-24 Screenshot_2015-01-01-12-53-06 Screenshot_2015-01-01-12-53-26 Screenshot_2015-01-01-12-53-50 Screenshot_2015-01-01-12-53-55

ক্যামেরাঃ
প্রিমো ই৫ এর ৩.২ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা দিয়ে আপনি ভাল কোয়ালিটির পিকচার তুলতে পারবেন। শাটার স্পিড ও মোটামুটি ভাল। ফ্ল্যাশ লাইটের উজ্জ্বলতাও মোটামুটি। এছাড়া আপনি খুবি ভাল কোয়ালিটির ভিডিও এই ফোনের ক্যামেরা দিয়ে করতে পারবেন। কয়েকটি ছবিঃ

IMG_20150209_140719 IMG_20150209_140732

এছড়া এই ফোনের ফ্রন্ট ক্যামেরাও মোটামুটি ভাল।

মাল্টিমিডিয়াঃ
ফোনটির সাউন্ড কোয়ালিটি খুব ভাল। এছাড়া ৭২০ পি ভিডিও ও স্মুথলি প্লে করা যায়।

কানেক্টিভিটি ও টেলিফোনিঃ
ফোনটিতে ওয়াইফাই ও ব্লুটুথের বর্তমান সাধারণ স্ট্যান্ডার্ড ব্যবহার করা হয়েছে। আর ফোনটিতে ডুয়াল সিমের দুটিতেই ৩ জি সাপোর্টেড।

সেন্সরঃ
ফোনটিতে  কেবল এক্সেলারোমিটার সেন্সর দেওয়া হয়েছে।এটা যদিও একটু অদ্ভুত লাগল আমার কাছে, যেখানে ওয়াল্টন আরো কিছু কম দামী স্মার্টফোনে আরো সেন্সর ইউজ করেছে। যাই হোক, আপনার গেমিং এ এট লিস্ট কোন সমস্যা হবে না।

বেঞ্চমার্ক টেস্টঃ
আমরা ফোনটিতে আন্টুটু বেঞ্চমার্ক টেস্ট রান করেছি। এতে ফোনটি ১০৮৫৮ স্কোর করতে সক্ষম হয়েছে। যা এই বাজেটে যেকোন ফোনের জন্য খুবি ভাল।

Screenshot_2015-01-01-06-13-55

ফোনটির গ্রাফিক্স টেস্ট অর্থাৎ নেনামার্ক টেস্ট এ ৪২.৯ স্কোর এসেছে । এই স্কোর থেকেই বোঝা যায় গেমিং ও ভিডিও প্লেব্যাক এর দিক দিয়ে ফোনটি কতটা ভাল হবে।

Screenshot_2015-01-01-06-14-58

মোটামুটি এই কনফিগ ও পারফরমেন্স এর এই ফোনটির মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে মাত্র ৪৯৫০ টাকা।

ফোনটির ভাল লাগা দিকঃ
সত্যি বলতে কি, ফোনটির এমন কোন ইউনিক দিক নেই যা স্পেশালি ভাল লাগার মত। লো বাজেটে ওভার অল খুবি ভাল একটি ফোন এটুকুই বলতে পারি।

খারাপ লাগা দিকঃ
এই ভাগে আমি বেশির ভাগ সময়ই একটি কথা বলে থাকি, সমালোচনা করার আগে একটু মূল্যটা আরেকবার ভাল করে দেখে নিবেন প্লিজ।

দেশের প্রতিটি জনগণের হাতে হাতে স্মার্টফোন পৌছে দিতে কম মূল্যের ভাল মানের ফোন খুবই ফলপ্রসূ হয়। তাই, ওয়াল্টন এর নিয়মিত ভাবে কম মূল্যে কোয়ালিটি স্মার্টফোন নিয়ে আসাকে আমি সবস্ময়ই সাধুবাদ জানাই। আশা করি ওয়াল্টন তাদের এই ধারা আরো অনেক দিন বজায় রাখবে।

11715188_10204004650506156_833578064_o

যারা এই টেক্সট রিভিউ পড়ে শান্তি পান নি তাদের ঘাবড়াবার কিছু নেই। কিছুদিনের মধ্যেই আমরা প্রিমো ই৫ এর ভিডিও হ্যান্ডস অন রিভিউ আপনাদের সামনে নিয়ে আসব। সো, স্টে টিউনড। বাংলায় এন্ডয়েড সমগ্র এর সাথেই থাকুন।
ধন্যবাদ। 🙂

মন্তব্যসমূহ