শেয়ার

Walton Primo X3 Mini – হ্যান্ডস অন রিভিউ

 

হাই এন্ড্রয়েড ইউজারগন, আশা করি ভাল আছেন। আপনাদের মন আরো ভাল করে দিতে আজ আপনাদের জন্য নিয়ে এলাম ওয়াল্টন প্রিমো এক্স ৩ মিনির হ্যান্ডস অন রিভিউ। অসাধারণ স্টাইলিশ এই সেট টি ইতিমধ্যেই দর্শকদের নজর আকৃষ্ট করতে পুরোপুরিভাবে সক্ষম হয়েছে। সেটটি বর্তমানে বিশ্বের ৩য় স্লিম ফোন হিসেবে স্বীকৃত।  এর
পুরুত্ব মাত্র ৫.১ মিলিমিটার আর ওজন ব্যাটারি সহ ৯৭ গ্রাম!! বিশ্বাস করা কঠিন, কিন্তু এটা সত্যি!! এই সেটটির হালকা পাতলা গড়ন সেটটির চাহিদা কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে!!

এই সেটের ৪.৮ ইঞ্চি সুপার এমোলেড ডিসপ্লে আপনাকে দেবে ক্লিয়ার ও এক কথায় “Awesome!” ভিউয়িং এক্সপেরিয়েন্স!

2nd 2 2nd 1

সেটটির আরেকটি আকর্ষনীয় দিক হচ্ছে এর সামনে ও পিছনে উভিয় দিকে ৩য় প্রজন্মের মজবুত ও স্ক্র‍্যাচ রেজিস্টেন্ট এবং চকচকে কর্নিং গরিলা গ্লাস ইউজ করা হয়েছে! এর ফলে সেটটির সামনের দিকের সাথে সাথে পিছনের দিকটিও থাকছে সুরক্ষিত।
এছাড়া এই সেটটিতে OTA(Over The Air) Update এর সুবিধা দেওয়া হয়েছে। ফলে যে কোন গ্রাহক অতি সহজে পিসির সাহায্য ছাড়াই যে কোন অফিসিয়াল আপডেট বা বাগ ফিক্স আপডেট করতে পারবেন!! এটি ও সেটটির একটি অন্যতম অনন্য দিক।

সেটটিতে ওয়াল্টন এর অন্যান্য বেশির ভাগ সেট এর মত মিডিয়াটেক চিপসেট ইউজ করা হয়েছে। এর সাথে আছে অক্টাকোর ১.৭ গিগাহার্জ ক্লক স্পীড এর প্রসেসর।  ১ জিবি র‍্যাম এর সাথে সাথে এতে রয়েছে মালি ৪৫০ এম পি ৪ জিপি ইউ.. যা আপনার ৩ডি গেমিং এক্সপেরিয়েন্স কে একটি খুব ই ভাল পর্যায়ে নিয়ে যাবে। এতে ফিফা ১৪, এসফাল্ট ৮, রিয়েল বক্সিং সহ আরো অনেক এইচ ডি গেম আমরা ফুল স্মুথলি চালাতে পেরেছি! 🙂  এছাড়া মাল্টিমিডিয়া এর দিক থেকে সেটটি অনন্য বলেই আমার মনে হয়েছে।

26th

ওয়াল্টন এর ক্যামেরা নিয়ে কথা বলার সময় আমার কথা শেষ হতে চায় না! বাট, লিমিটেড ওয়ার্ড এ লিখতে হবে, তাই ছোট করেই বলি। এতে ওয়াল্টন এর অন্য সেট গুলোর মত বি এস আই, সি এম ও এস সেন্সর সহ এতে রয়েছে অটো ফোকাস টেকনোলজি। ক্যামেরার সফটওয়্যার এ এত ফিচার এড করা হয়েছে যে তা বলতে গেলে আমাকে আরো ৩ টা পোস্ট করতে হবে! ৮ মেগা পিক্সেল এর এই ক্যামেরা দিয়ে দিনের বেলায় ফুল এইচ ডি ছবি তুলতে যেমন মজা পাওয়া যায়, এল ই ডি উজ্জ্বল ফ্লাশের বদৌলতে রাতের বেলায় ও আপনার ছবি তোলার এক্সপেরিয়েন্স কে অনন্য করে তুলবে। চরম ফাস্ট ক্যাপচারিং এর ফলে ২ সেকন্ড এ ২০+ ছবি তোলা কোন ব্যাপার ই না!
আর সামনের ৫ মেগা পিক্সেল ক্যামেরা দিয়ে মোটামুটি অন্ধকারেও ভাল ছবি তুলতে পারবেন। তাছাড়া ক্যামেরার ওয়াইড এংগেল এর জন্য এর সাহায্যে অনেক ভাল সেলফি বা গ্রুপফি তোলা যাবে।

এই ফোনের একটা সীমাবদ্ধতা হল এতে এক্সটারনাল মেমোরি ইন্সার্ট করা যাবে না। কিন্তু এর ১৬ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ থাকার ফলে স্টোরেজ নিয়ে কোন প্রব্লেম হওয়ার কথা না। তবুও যদি কারো প্রব্লেম মনে হয় তাদের ও চিন্তা করার কোন কারণ নেই!! কারণ এই সেট এ ইউ এস বি অন দা গো বা ওটিজি সুবিধা দেওয়া হয়েছে। ফলে আপনি ইচ্ছা করলেই এক্সটারনাল হার্ডডিস্ক,  পেনড্রাইভ, কার্ড রীডার এর সাহায্যে মেমোরি কার্ড ইউজ করে সহজেই আপনার স্টোরেজ সমস্যার সমাধান করতে পারবেন। 🙂

অনেক কথা বলে ফেললাম! আসলে সেট টিই এমন যা নিয়ে কথা অনেকক্ষণ চালিয়ে যাওয়া যাবে। যাই হোক, এবার আর কথা না বাড়িয়ে চলুন সেটটির ডিজাইন, পার্ফরমেন্স, ইউজার ইন্টারফেস, গেমিং পার্ফরমেন্স,  ক্যামেরা এসব দিকের হ্যান্ডস অন রিভিউ দেখে আসি। 🙂

প্রথমেই পয়েন্টেড আউট কী ফিচারস। এই সেটটি যাচাই করার সময় যে জিনিস গুলো সবার প্রথম মাথায় আসে তা হল:

* অপারেটিং সিস্টেম এন্ড্রয়েড কিটক্যাট ৪.৪.২
* সিংগেল মাইক্রো সিম কার্ড স্লট
* ৪.৮ ইঞ্চি সুপার এমোলেড এইচডি ডিসপ্লে (১২৮০*৭২০)
* MTK6592 চিপসেট এর সাথে ১.৭ গিগাহার্জ ক্লক স্পীড এর সিপি ইউ
* ১ গিগাবাইট র‍্যাম
* ১৬ জিবি রম
* মালি ৪৫০ এম পি ৪ জিপিইউ
* বি এস আই টেকনোলজি সহ ৮ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা
* ৫ মেগাপিক্সেল ওয়াইড এংগেল ফ্রন্ট ক্যামেরা
* অ্যাক্সেলারো মিটার ৩ডি, মোশন সেন্সর, প্রক্সিমিটি সেন্সর, লাইট সেন্সর, গাইরোস্কোপ সেন্সর, ওরিয়েন্টেশন সেন্সর, ৩ ডি ম্যাগনেটিক ফীল্ড সেন্সর, গ্রাভিটি সেন্সর, রোটেশন ভেক্টর সেন্সর, ২ ডি অ্যাক্সেলারো মিটার – এই সব সেন্সর এই সেট এ রয়েছে।
* ২১৫০ মিলি এম্পিয়ার এর নন রিমুভেবল লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি
* স্পেশাল ফিচার: OTG, OTA Update, Smart Gesture, Smart Cover
4th

তো চলুন, এবার স্টেপ বাই স্টেপ সেটটির হ্যান্ডস অন রিভিউ দেখে নেয়া যাক।

সেটটির সাথে যা যা থাকছে:
Primo X3 Mini স্মার্টফোনটির সাথে আপনি যা যা পাবেন –

১. নন রিমুভেবল ব্যাটারী
২. চার্জার অ্যাডাপ্টার
৩. ডাটা ক্যাবল
৪. ওটিজি ক্যাবল
৫. ইয়ারফোন
৬. ইউজার ম্যানুয়াল
৭. ওয়ারেন্টি কার্ড
৮. একটি এক্সট্রা স্ক্রিন প্রটেক্টর

6th

অপারেটিং সিস্টেম:
এই সেটটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে বর্তমানে বাংলাদেশ এ বহুল প্রচলিত ও এস এন্ড্রয়েড কিটক্যাট ৪.৪.২ ব্যবহার করা হয়েছে।

7th 1 (1) 7th 1 (2)

বিল্ড কোয়ালিটি,  ডিজাইন ও স্টাইল:
আগেই বলেছি প্রিমো এক্স ৩ মিনি সেটটির ডিজাইন এবং স্টাইল খুব ই চমৎকার এবং তা যে কারো নজর কাড়তে সক্ষম! এর অনন্য বিল্ড কোয়ালিটির কারণে এই সেটটি অন্য সেট গুলোর চেয়ে আলাদা। এই সেট এর সামনে ও পিছনে উভয় দিকে ৩য় জেনারেশন এর কর্নিং গরিলা গ্লাস ব্যাবহার করায় সেটটি অধিক মজবুত ও দাগ নিরোধক হয়েছে। এছাড়া সেটটি অনেক টা চমকদার হয়েছে, সামনে পিছনে উভয় দিকেই সেটটি ঝকঝকে! তাছাড়া এই সেটটির এজ বা কোণা গুলো সুন্দর ভাবে রাউন্ডেড করা হয়েছে, যার ফলে এতে চার কোনা বক্সের মত ভাব টা থাকে নি।

8th (1) 8th (2) 8th (3)

এই ফোনের নিচের অংশে রয়েছে ৩.৫ মিলিমিটার অডিও পোর্ট ও ইউএসবি ২.০ পোর্ট । ফোনটির বামদিকে রয়েছে ভলিউম কী ও পাওয়ার কী আর অপর দিকে রয়েছে সিম স্লট। এর সিম স্লটটি বাইরে থাকায় সিম পরিবর্তন করা অত্যন্ত সহজ হয়েছে।

9th 2 9th

এর পেছনের দিকে উপরের অংশে আছে ৮ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা ও ফ্ল্যাশলাইট আর নিচের দিকে রয়েছে স্পীকার। সামনের দিকে উপরে রয়েছে ফ্রন্ট ক্যামেরা, ফোন স্পীকার, লাইট ও প্রক্সিমিটি সেন্সর।  আর নিচে রয়েছে তিনটি ক্যাপাসিটিভ টাচ বাটন.. অপশন,  হোম ও ব্যাক বাটন। ওয়াল্টন এর এই আরেকটা জিনিস যা আমার পার্সোনালি খুব ভাল লাগে তা হল তারা বেশির ভাগ সেট এই তাদের এই বাটন গুলোর স্টাইল চেঞ্জ করে। এক্স ৩ মিনির বাটন গুলোর স্টাইল ও খুব ই চমৎকার!!  🙂

10th 11th

এক্স ৩ মিনি সেটটির উচ্চতা ১৩৮ মিলিমিটার,  প্রস্থ ৬৭.৪ মিলিমিটার।  আর, সবচেয়ে চমকপ্রদ বিষয় এর পুরুত্ব,  যা মাত্র ৫.১ মিলিমিটার। আপনি একটা স্কেল নিয়ে দেখবেন ৫.১ মিলিমিটার কতটুকু। তাহলেই এই সেটটি কতটা পাতলা তার ধারণা পাবেন!  আর এই সেটটির ভর ব্যাটারি সহ মাত্র ৯৭ গ্রাম!! খুবই হালকা!! হাতে নিয়ে ব্যবহার করলে কেমন যে এক্সপেরিয়েন্স হয় তা বলে বোঝানো যাবে না!

12th

ডিসপ্লে:
প্রিমো এক্স ৩ মিনিতে ডিসপ্লে হিসেবে ৪.৮ ইঞ্চি সুপার এমোলেড এইচ ডি ডিসপ্লে ব্যাবহার করা হয়েছে। সুপার এমোলেড ডিসপ্লে এই সেট এর ডিসপ্লে ভিউ কে আরো কালারফুল ও বিউটিফুল করে তুলেছে। এর এইচডি ডিসপ্লে তে যে কোন কিছু ক্লিয়ারলি বুঝা যায়। তাছাড়া কর্নিং গরিলা গ্লাস 3rd generation ব্যবহার করায় ডিসপ্লে থাকবে স্ক্র‍্যাচ রেজিস্টেন্ট। এই সেটের ডিসপ্লে ডেনসিটি ৩০৬ পিপিআই(পিক্সেল পার ইঞ্চি)।

13th
আরেকটা কথা, এই সেটটি আপ টু ১০ ফিংগারস মাল্টি টাচ সাপোর্ট করে!!!!

13th 2

ইউজার ইন্টারফেস:
এই সেটটির ইউজার ইন্টারফেস অত্যন্ত চমৎকার।  এই সেট এর লাঞ্চার এর ট্রানজিশন খুব ই স্মুথ। এতে কোন প্রকার ল্যাগ নেই। তাছাড়া, এই সেটের সিস্টেম ইউ আই তৈরীতে লাইট হোলো থীম ইউজ করা হয়েছে। এছাড়া সেটটির স্টক লাঞ্চার এর সাথে কিছু সুন্দর সুন্দর থীম ও দিয়ে দেওয়া হয়েছে।

14th (2)

এই সেটটির নোটিফিকেশন বার ও স্ট্যাটাস বার ওয়াল্টন এর সাধারণ কিটক্যাট নোটিফিকেশন বার ও স্ট্যাটাস বার এর মতই রাখা হয়েছে।

14th (1)

প্রসেসর:
প্রসেসর হিসেবে এই ফোনে ১.৭ গিগাহার্টজ ক্লক স্পীড এর আটটি কোরের প্রসেসর দেওয়া হয়েছে। দ্রুতগতির প্রসেসর ব্যবহৃত হওয়ায় এই ফোনে মাল্টিটাস্কিং, এইচডি গেমিং প্রভৃতি বেশ স্মুথলি করা যায়। এছাড়া যে কোন প্রসেসিং এর কাজ খুব দ্রুত সম্পন্ন হয়।

র‍্যাম:
এই সেট এ র‍্যাম হিসেবে ১ জিবি র‍্যাম ব্যাবহার করা হয়েছে। যার মধ্যে ৯৫৩ এম বি ইউজার এভেইলএবল। সেটটিতে এই ১ জিবি র‍্যাম খুব ভাল ব্যাকআপ ই দেয়। অবশ্য প্রোপার ব্যাকআপ পাওয়ার জন্য ইউজার এর সতর্কতাও প্রয়োজন।

জিপিইউ:
এতে জিপিইউ হিসেবে মালি ৪৫০ এম পি ৪ ব্যবহৃত হয়েছে। এই জিপিইউ অনেক শক্তিশালী এবং বেশির ভাগ এইচ ডি গেম ও ভিডিও প্লে করার জন্য এটি খুবই চমৎকার পার্ফরমেন্স দেয়। এই জিপিইউ টি ৪ টি কোর নিয়ে গঠিত, তাই গ্রাফিক্স রেন্ডারিং ক্ষমতা অনেক বেশি। এর জিপিইউ এর ক্ষমতা আপনারা এর নেনামার্ক টেস্ট দেখলেই বুঝবেন।

চিপসেট :
এক্স ৩ মিনিতে চিপসেট হিসেবে মিডিয়াটেক এর MTK6592 ব্যবহার করা হয়েছে।

15th (2)

রম ও মেমোরি :
এই সেট এ ১৬ জিবি স্পেস রম হিসেবে দেওয়া হয়েছে যার মধ্যে ২.৩৮ জিবি রাখা হয়েছে এপ্স ইন্সটল এর জন্য!!! অর্থাৎ এতে অনেক এপ্স ইন্সটল করলেও স্পেস শেষ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। রম এর ১০.৩ জিবি এর মত জায়গা কে স্টোরেজ হিসেবে দেওয়া হয়েছে।  বাকিটা সিস্টেম রিজার্ভড। এক্সট্রা এস ডি কার্ড স্লট না থাকলেও ১০.৩ জিবির মত স্টোরেজ থাকায় কারো স্টোরেজ নিয়ে সমস্যা হওয়ার কথা না। তবু কারো সমস্যা হলে সে অতি সহজেই ওটিজি এর সহায়তা নিতে পারে। যা আমি আগেই বলেছি।

15th (1) 16th

ক্যামেরা:
বি এস আই টেকনোলজি সমৃদ্ধ ৮ মেগাপিক্সেল এর ক্যামেরার সাহায্যে আপনি লো লাইট এও ভাল ছবি তুলতে পারবেন.. তাছাড়া এর ক্যাপচারিং স্পীড খুব ই ভাল। অটোফোকাস টেকনোলজি থাকায় ফোকাস করে আপনি খুব হাই কোয়ালিটির পিকচার ক্যাপচার করতে পারবেন। তাছাড়া এই সেট এর ক্যামেরা সফটওয়্যারটিতে অনেক ফিচার এড করা হয়েছে। এর মধ্যে HDR Photo Capturing, Capture with effects,  Smile shot, V gesture shot,  Touch shot উল্লেখযোগ্য।

17th
কিছু ছবি:

18th (1)

18th (2)

18th (3)

তাছাড়া এর অত্যন্ত উজ্জ্বল এল ই ডি ফ্লাশের সাহায্যে খুব অন্ধকারেও ভাল ছবি পাওয়া যায়। নিচের ছবিটি দেখলেই বুঝবেন :

18th (4)

এছাড়া এই সেটের ৫ মেগাপিক্সেল এর ফ্রন্ট ক্যামেরা সেলফি বা গ্রুপফি তোলার জন্য আদর্শ। এর ওয়াইড এংগেল ও ক্লিয়ার ক্যাপচারিং এই ক্যামেরাকে আরো উন্নতমানের করে তুলেছে।

মাল্টিমিডিয়া :
এই সেটটিতে ৩.৫ মিলিমিটার এর অডিও জ্যাক পোর্ট দেওয়া আছে। সেটটির সাথে যে হেডফোন টি দেওয়া থাকবে সেটার অডিও কোয়ালিটি আমার কাছে খুব ভাল লেগেছে। এর সাহায্যে এফ এম বা মিউজিক শুনে খুব ভাল লাগল। তাছাড়া, সেট এর সাউন্ড কোয়ালিটি ও ভাল।

তাছাড়া এই সেট এ ১০৮০পি ভিডিও ও ল্যাগহীন ভাবে চলে। সুপার এমোলেড ডিসপ্লে থাকায় ভিডিও দেখে আলাদা মজা পাবেন।

1504535_839674532763356_7155545746864305019_n

গেমিং :
এখনকার দিনে গেমিং হল যে কোন এন্ড্রয়েড সেট কেনার একটি অন্যতম উদ্দেশ্য। তাই, আপনাদের কথা মাথায় রেখেই আমরা এই সেটটিতে এসফাল্ট ৮, নীড ফর স্পীড মোস্ট ওয়ান্টেড, ফিফা ১৪, রিয়েল ক্রিকেট ১৪, মডার্ন কম্ব্যাট ৪ প্রভৃতি গেম রান  করে দেখেছি। গেমগুলা টোটালি স্মুথলি কোন ল্যাগহীন ভাবেই চালাতে পেরেছি আমরা। যদিও অক্টাকোর প্রসেসর,  ১ জিবি র‍্যাম ও মালি ৪৫০ এম পি ৪ জিপিইউ থাকায় আগেই জানা ছিল যে গেম গুলো কোন ল্যাগ ছাড়াই চলবে, তাও আমরা কনফিউশন দূর করার জন্য খেলে শিউর হলাম। 🙂

asphalt1

download-fifa-14-apk-android

 

কানেক্টিভিটিঃ
এই ফোনে ব্লুটুথ ৪.০, ওয়াইফাই, ওয়্যারলেস হটস্পট, ওয়্যারলেস ডিসপ্লে শেয়ারিং প্রভৃতি কানেক্টিভিটি সুবিধা রয়েছে। এছাড়া জিপিএস ও এজিপিএস নেভিগেশন সুবিধাতো রয়েছেই।

সিম:
এই সেট এর একটি দুর্বল দিক হল এতে একটি মাত্র সিম ব্যাবহারের সুবিধা দেওয়া হয়েছে। সিম স্লট টি ২ জি / ৩ জি দুটোই সাপোর্ট করে। এই সেট এর সিম স্লট বাইরের দিকে দেওয়া হয়েছে।

সেন্সর:
প্রিমো এক্স ৩ মিনি তে সেন্সর হিসেবে অ্যাক্সেলারো মিটার ৩ডি, মোশন সেন্সর, প্রক্সিমিটি সেন্সর, লাইট সেন্সর, গাইরোস্কোপ সেন্সর, ওরিয়েন্টেশন সেন্সর, ৩ ডি ম্যাগনেটিক ফীল্ড সেন্সর, গ্রাভিটি সেন্সর, রোটেশন ভেক্টর সেন্সর, ২ ডি অ্যাক্সেলারো মিটার ব্যাবহার করা হয়েছে।

22th

ব্যাটারি :
এই সেটে নন রিমুভেবল ২১৫০ মিলি এম্পিয়ার এর লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি ব্যাবহার করা হয়েছে। এর ব্যাটারি ব্যাকআপ ভাল। এতে আপনি টানা ৭ ঘন্টা নেট সার্ফিং করতে পারবেন। আর এইচ ডি গেমিং এর ক্ষেত্রে ৫ ঘন্টার মত ব্যাটারি ব্যাকআপ পেতে পারেন।

বেঞ্চমার্ক টেস্টস:
সাধারণত কোন সেট এর বেঞ্চমার্ক টেস্ট করে সেটটির স্কোর দেখে তা ব্যবহার না করেই এর পার্ফরমেন্স সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। তো, আমরা তাই বেঞ্চমার্ক টেস্ট করার জন্য AnTuTu বেঞ্চমার্ক ব্যবহার করি। এতে এর স্কোর এসেছে ২৭৩১৭। এটি খুব ই ভাল স্কোর, এবং এ স্কোর স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৪ এর খুব কাছা কাছি।
23th (1) 23th (4)
নিচে গ্যালাক্সি এস ৪ এর সাথে এক্স ৩ মিনির তুলনা দেখানো হল:
23th (2)
নিচে এক্সপেরিয়া জেড ১ ও এক্স ৩ মিনির তুলনা দেখুন

23th (3)

গ্রাফিক্স টেস্ট করার এপ নেনামার্ক ২ তে এর স্কোর এসেছে ৬১.৭!!! এই স্কোর টিই বলে দিচ্ছে এই সেট এ যে কোন এইচডি গেম বা ভিডিও কোন ল্যাগ ছাড়া প্লে করা যাবে!!

24th (2) 24th (1)

ওটিজি:
এই সেটটিতে OTG(USB On The Go) সুবিধা থাকায় আপনি সেট এর সাথে দেওয়া ওটিজি ক্যাবল ব্যবহার করে আপনি এক্সটার্নাল হার্ডডিস্ক,  পেনড্রাইভ, মেমোরি  কার্ডরীডার, কীবোর্ড,  মাউস,  মডেম সহ আরো অনেক ইউ এস বি ইনেবলড ডিভাইস ইউজ করতে পারবেন।

ওটিএ:
OTA(Over The Air) আপডেট সুবিধার ফলে পিসির সাহায্য ছাড়াই আপনি আপনার সেট এর যেকোন প্রকার অফিসিয়াল সিস্টেম আপডেট ফোনের সাহায্যেই ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন। কোন প্রকার সিস্টেম আপডেট চেক এর জন্য কাস্টোমার কেয়ার এও যোগাযোগ করতে হবে না! 🙂

25th

রং:
কালো ও ধূসর – এই ২টি রংয়ে বাজারে পাওয়া যাচ্ছে প্রিমো এক্স ৩ মিনি

মুল্য:
অসাধারণ স্টাইলিশ ও এভারেজ কনফিগারেশন এর এই সেটের দাম ওয়াল্টন কর্তৃপক্ষ ১৯৯৯০ টাকা নির্ধারণ করেছে। কনফিগারেশন অনুযায়ী দাম টা বেশি মনে হলেও সেটটির স্টাইল এবং ডিজাইন এর দিকে দেখলে কখন ও এর দাম বেশি মনে হবে না।

প্রিমো এক্স ৩ মিনির ভাল লাগা কিছু দিক:
* প্রথমেই বলতে হয়,  অসাধারণ স্টাইলিশ সেট
* স্লিম বডি, এবং ওজনেও কম
* সুপার এমোলেড এইচডি ডিসপ্লে
* সামনে ও পিছনে উভয় দিকে কর্নিং গরিলা গ্লাস এর ব্যাবহার
* ক্যামেরা পার্ফরমেন্স
* গেমিং পার্ফরমেন্স
* ওটিজি
* ওটিএ আপডেট সুবিধা
* অনেক সেন্সরস
* ১০ আংগুল এ মাল্টিটাচ সাপোর্ট

খারাপ লাগা কিছু দিক:
* শুধু সিংগেল সিম সাপোর্ট
* এক্সট্রা এস ডি কার্ড সাপোর্ট না থাকা
* কনফিগারেশন এর তুলনায় দাম সাধারণ ব্যবহারকারীদের নাগালের বাইরে

শেষ কথা:
অসাধারণ স্টাইলিশ, মনকাড়া ডিজাইন ও গুরুত্বপূর্ণ ফিচার সংবলিত ওয়াল্টন প্রিমো এক্স ৩ মিনি কে অনায়াসে ডিজাইনের দিক দিয়ে এ বছরের ওয়াল্টন এর ফ্লাগশীপ সেট বলা যায়। এর কনফিগারেশন ও ভাল। কাজেই স্টাইল এর দিকে যাদের নজর বেশি.. আবার মোটামুটি ভাল কনফিগারেশন এর সেট চান এই সেট টি তাদের অন্যতম পছন্দ হতে পারে। সেটটি চালিয়ে নিশ্চিত মজা পাবেন সে গ্যারান্টি যে কেউ দিতে পারে।

27th

বাংলাদেশ এ কম দামে মানসম্মত স্মার্টফোন বাজারজাত করার দিক দিয়ে ওয়াল্টন অন্যতম। আমরা আশা রাখি ভবিষ্যতে আমরা আরো ভাল ও স্টাইলিশ সেট অপেক্ষাকৃত কম দামে পাব।

ধন্যবাদ

মন্তব্যসমূহ